'সাপকে বিয়ে করার খবর ভুয়া' | daily-sun.com

'সাপকে বিয়ে করার খবর ভুয়া'

ডেইলি সান অনলাইন     ১৯ নভেম্বর, ২০১৬ ২১:২২ টাprinter

'সাপকে বিয়ে করার খবর ভুয়া'

সাপের সাথে আবু জারিফ হাসিন

 

সাপকে বিয়ে করার একটি খবর সারা বিশ্বে ফলাও করে ছড়িয়ে পড়ে ইংল্যান্ডের একটি ট্যাবলয়েড কাগজে এরকম একটি সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর। ওই খবরে বলা হয়, মালয়েশিয়ায় একজন দমকল কর্মী তার পোষা একটি সাপকে বিয়ে করেছেন। তিনি বিশ্বাস করেন, ওই সাপটি আসলে তার এক বান্ধবী যিনি তার মৃত্যুর পর সাপের রূপ নিয়ে পুনর্জন্ম নিয়েছেন।


আবু জারিন হাসিন নামের ওই দমকল কর্মী বলছেন, এটি একটি ভুয়া খবর এবং এই খবরে তিনি দারুণ কষ্ট পেয়েছেন। 


মি. হাসিনের বয়স ৩১। তিনি একজন মুসলিম। বর্তমানে তার কাছে চারটি সাপ আছে। তাদেরকে তিনি সবসময় তার সাথেই রাখেন। তিনি বলেন, সাপের আচরণ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়ার জন্যেই তিনি এগুলোকে সাথে রাখেন। এছাড়া মালয়েশিয়ার পাহাঙ রাজ্যে অন্যান্য দমকল কর্মীদেরকে তিনি কিভাবে সাপ ধরতে হয় সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। কিন্তু এ মাসের শুরুর দিকে যুক্তরাজ্যের ট্যাবলয়েড কাগজে তার সাথে সাপের বিয়ের খবরটি ছাপা হয়েছিলো।


মি. হাসিন বিবিসিকে বলেছেন, এরকম একটি ভুয়া খবরে তিনি 'খুবই হতাশ' হয়েছেন। তিনি বলেছেন, এসব প্রতিবেদনে তার ফেসবুক পাতা থেকে ছবি নিয়ে সেগুলোকে প্রকাশ করা হয়েছে।
আমি সবসময় সাপ নিয়েই কাজ করি। অন্যান্য দমকল কর্মীদেরকেও আমি প্রশিক্ষণ দিচ্ছি কিভাবে সাপকে উদ্ধার করতে হয়, ধরতে হয় এবং সাপকে কিভাবে রাখতে হয় এসব বিষয়ে।


তিনি একজন বিবাহিত পুরুষ। এবং তিনি বলেছেন, এসব খবরে তার স্ত্রীর সাথে কোন 'সমস্যা' হয়নি কারণ তার স্ত্রী ভালো করেই জানেন এসব 'ভুয়া খবর।'


ডেইলি মিরর পত্রিকায় এই খবরটি ছাপা হয় ১০ই নভেম্বর। তার একদিন পরেই খবরটি দেয় ডেইলি মেইলের ওয়েবসাইটও। মিররের অনলাইন খবরে বলা হয়, মি. হাসিন এই সাপটির সাথে তার মৃত বান্ধবীর অসম্ভব রকমের মিল খুঁজে পেয়েছেন।

 

সাপের সাথে আবু জারিফ হাসিনের ছবি


প্রতিবেদনে বলা হয়, "তিনি এখন ১০ ফুট লম্বা এই কোবরা সাপটির সাথে জীবন কাটাচ্ছেন। তিনি বিশ্বাস করেন যে এটি তার মৃত প্রেমিকা। কারণ বৌদ্ধ ধর্মে বলা হয়েছে, মানুষের মৃত্যুর পর প্রাণীর রূপ ধরে পৃথিবীতে তার পুনর্জন্ম হতে পারে।"


মালয়েশিয়ার স্টার সংবাদপত্রকে আবু জারিফ বলেন, "এগুলো আমার ছবি। আমার ফেসবুক থেকে এসব ছবি নিয়ে তারা গল্প বানাতে শুরু করেছে। তারা বলে যে আমি নাকি একটি সাপকে বিয়ে করেছি।"


যে সংবাদ সংস্থাটি মিরর অনলাইনের কাছে এই খবরটি বিক্রি করেছে, তারা বলছেন, থাইল্যান্ড থেকে এক ব্রিটিশ সাংবাদিক এসব তথ্য সরবরাহ করেছিলেন। তিনি একটি থাই সংবাদ মাধ্যমে কাজ করেন। সেখানেই খবরটি প্রথম প্রকাশিত হয়।

-সূত্র: বিবিসি বাংলা


Top