মিশরীয় উপকূলে নৌকাডুবি, শতাধিক নিহতের আশঙ্কা | daily-sun.com

মিশরীয় উপকূলে নৌকাডুবি, শতাধিক নিহতের আশঙ্কা

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:০৯ টাprinter

মিশরীয় উপকূলে নৌকাডুবি, শতাধিক নিহতের আশঙ্কা

 

মিশরীয় উপকূলে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বহনকারী নৌকাডুবিতে শত শত মানুষ তলিয়ে গেছেন বলে দাবি করেছেন ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া এক ব্যক্তি। নৌকাটিতে ৪৫০ থেকে ৬শ’ জনের মতো আরোহী ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে ১৬৯ জনকে উদ্ধার করা গেছে। আর নতুন করে ৯ টি মৃতদেহ উদ্ধার করার পর মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫২ জনে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মিশরের কাফর আল-শেখ উপকূলে নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকাটির চারজন ক্রুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে মিশরীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

 

দেশটির আইন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা নরহত্যা ও মানবপাচারের সঙ্গে তারা যুক্ত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। নৌকাটি উপকূল থেকে আট মাইল যাওয়ার পর ডুবে যায়। ঠিক কতজন ডুবে গেছেন কিংবা নৌকাটিতে কতজন যাত্রী ছিলেন তা  এখনো পর্যন্ত নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বুধবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সীমান্ত বিষয়ক সংস্থা অভিবাসন প্রত্যাশীরা ইউরোপে যাওয়ার পথ হিসেবে মিশরকে ব‌্যবহার করছে বলে সতর্ক করেছিল। আর এরপরই নৌডুবির এই ঘটনা ঘটল। নৌকাটির ক্রু সদস্যদের চারজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

 

 নৌকাটি মিশর, সিরিয়া এবং আফ্রিকার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বহন করছিল বলে নিরাপত্তা সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে। কর্মকর্তারা এরআগে উদ্ধার করা লাশের যে সংখ্যা জানিয়েছিলেন তাতে নারী-পুরুষ ও শিশুর লাশও রয়েছে। এএফপি সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে যে সুদান ও আফ্রিকার অন্যান্য দেশের নাগরিকও রয়েছেন। তবে এই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের চূড়ান্ত গন্তব্য কোথায় ছিল সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু জানা না গেলেও কর্মকর্তাদের ধারণা, সম্ভবত নৌকাটি ইতালির উদ্দেশেই যাচ্ছিল।

 

মানবাধিকার গবেষকেরা গেল মাসে জানিয়েছিল, ২০১৫ সাল থেকে চলতি বছরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ৬,৬০০ অভিবাসনপ্রত্যাশী ভূমধ্যসাগরে ডুবে মারা গেছেন। তবে তথ্যের ঘাটতির কারণে এই পরিসংখ্যানেও প্রকৃতচিত্র প্রতিফলিত হয়নি বলেও মনে করছেন তারা। মৃত্যুবরণকারীদের সংখ্যা আরো বেশি হবে বলেই তাদের ধারণা। দি ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) জুলাইয়ে একটি পরিসংখ্যান প্রকাশ করে। তাতে ২০১৬ সাল অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মৃত্যুর ক্ষেত্রে সবচে খারাপ বছর হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। সংস্থাটি বলছে, চলতি বছর এ পর্যন্ত শুধু ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে প্রায় ৩ হাজার শরণার্থী এবং অভিবাসনপ্রত্যাশী মারা গেছেন। 

 

 


Top