প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ শুরু | daily-sun.com

প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ শুরু

ডেইলি সান অনলাইন     ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১২:২৫ টাprinter

প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ শুরু

 

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ শুরু হয়েছে। সোমবার (১০ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে ঢাকার ১৫টি আসনের প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দের মধ্যে দিয়ে এ কার্যক্রম শুরু হলো।


প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেন ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কে এম আলী আজম। এ কার্যালয় থেকে ঢাকা-৪ থেকে ঢাকা-১৮ আসনের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।


তফসিল অনুযায়ী, গত ২৮ নভেম্বর ছিল মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। মোট তিন হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলো থেকে জমা পড়ে মোট দুই হাজার ৫৬৭টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ৪৯৮টি মনোনয়নপত্র।


গত ২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি অবৈধ বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আ’লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয় ৩৮৪টি।


এদের মধ্যে প্রার্থিতা ফিরে পেতে গত সোম থেকে বুধবার (৩, ৪ ও ৫ ডিসেম্বর) পর্যন্ত তিন দিনে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) মোট ৫৪৩টি আপিল জমা পড়েছে।

বাকি ২৪৩ জন আপিল করেননি।


প্রথম দিন ৩ ডিসেম্বর ৮৪, দ্বিতীয় দিন ৪ ডিসেম্বর ২৩৭ এবং শেষ দিন বুধবার ২২২টি আপিল জমা পড়ে।


৬ ডিসেম্বর থেকে ৮ ডিসেম্বর তিনদিনের শুনানি শেষে ২৪৩ জন প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছন। আর ৩০০ জনের আবেদন না মঞ্জুর হয়েছে। এতে একাদশ সংসদ নির্বাচনে মোট বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়াল ২ হাজার ৫২২ জন। এর মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী আছেন ১৮৫ জন। আপিল আবেদনে সবচেয়ে বেশি প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছে বিএনপির প্রার্থীরা। এরপরেই আছে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অবস্থান।


বিএনপির অন্তত ৭৮ জন তাদের প্রার্থিতা ফেরত পেলেও  বিএনপি প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া পাননি।


উল্লেখ্য, ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই তফসিল অনুযায়ী, ২৩ ডিসেম্বর ভোটের দিন নির্ধারিত হয়। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আবেদনের ভিত্তিতে ২৩ ডিসেম্বরের পরিবর্তে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। পুনঃতফসিল অনুযায়ী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমার শেষ তারিখ ২৮ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর এবং ভোট গ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়।


প্রতীক বরাদ্দ হলেই প্রচার উৎসবে নামতে পারবেন প্রার্থীরা। প্রচারের সময় যাতে আচরণ বিধিমালা লঙ্ঘন না হয়, সে জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশনা দিয়েছে ইসি।

 


Top