৬৪টি জেলায় আটদিনব্যাপী স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব শুরু | daily-sun.com

৬৪টি জেলায় আটদিনব্যাপী স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৭:৩৩ টাprinter

৬৪টি জেলায় আটদিনব্যাপী স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে দেশব্যাপী একযোগে আটদিনব্যাপী ৬৪টি জেলায় ‘বাংলাদেশ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৮’ শুরু হয়েছে।

 

গতকাল শনিবার (৮ ডিসেম্বর) বিকাল ৫টায় জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে সামনে একাডেমির নৃত্যশিল্পীদের পরিবেশনার মধ্যদিয়ে উৎসবের উদ্বোধন করা হয়।

এ উৎসবে ৪৮টি স্বল্পদৈর্ঘ্য এবং ২২টি প্রামাণ্যচিত্রসহ ৭০টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

 

 

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল মালেক, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার এবং বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের সভাপতি জাহিদুর রহিম অঞ্জন। এছাড়া স্বাগত বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সচিব এবং নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের পরিচালক মো: বদরুল আনম ভূঁইয়া।

 

এ উৎসবের উপলক্ষে গঠিত পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচক কমিটির সদস্যরা ৪৮টি স্বল্পদৈর্ঘ্য এবং ২২টি প্রামাণ্যচিত্রসহ ৭০টি চলচ্চিত্র মনোনীত করেন।

 

চলচ্চিত্র নির্বাচক কমিটির সদস্যরা হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হক, বাংলাদেশ প্রামাণ্যচিত্র পর্ষদের উপদেষ্টা সাজ্জাদ জহির, বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের এ কে রেজা গালিব, ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশ-এর সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন মামুন এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের সহকারী পরিচালক চাকলাদার মোস্তফা আল মাস্উদ।

 

স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উভয়ক্ষেত্রে পৃথকভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং বিশেষ জুরি পুরষ্কার প্রদান করা হবে। পুরষ্কার প্রদানের লক্ষে চলচ্চিত্র নির্মাতা সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী’কে চেয়ারম্যান করে ৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি জুরি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দরা হলেন বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা জনাব মোরশেদুল ইসলাম, চলচ্চিত্র নির্মাতা ও গবেষক জনাব ফরিদুর রহমান, চলচ্চিত্র গবেষক জনাব অনুপম হায়াৎ, কমিটির সদস্য সচিব বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডমির সচিব এবং নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের পরিচালক জনাব মো: বদরুল আনম ভূঁইয়া।

 

স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উভয়ক্ষেত্রে পৃথকভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরষ্কারের অর্থমূল্য থাকবে ১ লক্ষ টাকা, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্মাতা ৫০ হাজার টাকা ও বিশেষ জুরি পুরষ্কার ২৫ হাজার টাকা।

 

আগামি ১৫ ডিসেম্বর জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে উৎসবের সমাপনী দিনে পুরষ্কার ঘোষণা করা হবে এবং উৎসবে অংশগ্রহণকৃত চলচ্চিত্রের সকল নির্মাতাদের সনদপত্র প্রদান করা হবে।

 

গতকাল শনিবার শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার সেমিনার কক্ষে পরিবারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তথ্য জানানো হয়। উপস্থিত ছিলেন আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে আকাশ হোসেন ও মেঘদূত হোসেন, শিল্পীর ছোট ভাই আলী হোসেন বাব, শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী প্রমুখ।

 

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আনোয়ার হোসেনের ৫০ থেকে ৬০ হাজারের মতো ছবির নেগেটিভ, বিভিন্ন রচনা ও সাক্ষাৎকার রয়েছে। আলোকচিত্রী হিসেবে তার প্রকৃত কাজের প্রায় ৯০ ভাগই এখনও জনগণের অদেখা রয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে- প্রথম শহীদ মিনার ভাঙার ছবি, সে স্থানে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায়ের ছবিসহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক মুহূর্ত।

 

উল্লেখ্য বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি দীর্ঘদিন যাবৎ চলচ্চিত্রের উন্নয়নে নানামুখি কাজ করে চলছে। ২০১৫ ও ২০১৭ সালে দু’বার ৬৪টি জেলায় একযোগে ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব’ আয়োজন, ২০১৬ সালে এবং এবছর দ্বিতীয়বারেরমত ৬৪টি জেলায় ‘বাংলাদেশ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র উৎসব’ আয়োজন, ২০১৭ সালে দেশব্যাপী ৬৪ জেলায় ‘বাংলাদেশ শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’ আয়োজন করা হয়। এছাড়া ৬৪টি জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে ফিল্ম সোসাইটি গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।


Top