প্রার্থীতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে হাওলাদার-দুলু | daily-sun.com

প্রার্থীতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে হাওলাদার-দুলু

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৬:৪৮ টাprinter

প্রার্থীতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে হাওলাদার-দুলু

 

জাতীয় পার্টির সদ্য সাবেক মহাসচিব ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিশেষ সহকারী রুহুল আমিন হাওলাদার ও বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেছেন। রবিবার (৯ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এসব রিট দায়ের করেন এই দুই নেতা।

 

সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ এ দু’টি রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করতে পারেন।


সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক ঢাকার গুলশান শাখায় ঋণ খেলাপির দায়ে পটুয়াখালী-১ আসন থেকে রুহুল আমিন হাওলাদারের মনোনয়ন বাতিল করা হয়।


দু’টি ফৌজদারি মামলায় দণ্ডিত হওয়ার অভিযোগে বিএনপি প্রার্থী এম রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। তিনি নাটোর-২ আসনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।


প্রসঙ্গত, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীতার পক্ষে-বিপক্ষে করা আপিলে নির্বাচন কমিশনের তিন দিনের শুনানি শেষে ২৪৩ জন প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছন। আর ৩০০ জনের আবেদন না মঞ্জুর হয়েছে। এতে একাদশ সংসদ নির্বাচনে মোট বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়াল ২ হাজার ৫২২ জন। এর মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী আছেন ১৮৫ জন। আপিল আবেদনে সবচেয়ে বেশি প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছে বিএনপির প্রার্থীরা।

এরপরেই আছে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অবস্থান।


বিএনপির অন্তত ৭৮ জন তাদের প্রার্থিতা ফেরত পেলেও  বিএনপি প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া পাননি।


৬ ডিসেম্বর থেকে ৮ ডিসেম্বর তিনদিনের শুনানিতে হাই প্রোফাইল প্রার্থীদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, বিএনপি নেতা আমানুল্লাহ আমান, মীর নাছির, মীর হেলাল, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বিশেষ উপদেষ্টা রুহুল আমীন হাওলাদার, গণজাগরন মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারসহ তিনশত প্রার্থীর আবেদন না মঞ্জুর করেছে কমিশন।


উল্লেখ্য, ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই তফসিল অনুযায়ী, ২৩ ডিসেম্বর ভোটের দিন নির্ধারিত হয়। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আবেদনের ভিত্তিতে ২৩ ডিসেম্বরের পরিবর্তে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। পুনঃতফসিল অনুযায়ী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমার শেষ তারিখ ২৮ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর এবং ভোট গ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়।

 


Top