এবার ‘অনশনে’ ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা | daily-sun.com

এবার ‘অনশনে’ ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:১৮ টাprinter

এবার ‘অনশনে’ ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা

 

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে গ্রেফতার শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে তৃতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। এবার ক্লাস বর্জন করে ‘অনশনে’ বসেছে তারা।

তবে ক্লাস বর্জন করলেও পরীক্ষায় অংশ নেবে বলে জানিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। রবিবার (৯ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে প্রতিষ্ঠানটির মূল ক্যাম্পাসের গেটের সামনে বসে শিক্ষার্থীরা এ ‘অনশন’ কর্মসূচি পালন করছে।


এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘হাসনা হেনা আপার মুক্তির দাবিতে আমরা আজ সকাল থেকে অনশন আন্দোলন শুরু করেছি। যতক্ষণ আমার মাকে (শিক্ষক) ফিরে না পাচ্ছি, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের এই অনশন ও বিক্ষোভ অব্যাহত থাকবে। ’


তিনি আরও বলেন, ‘বিচার চাইতে গিয়ে কেন অবিচার হবে? আমরা অরিত্রীর আত্মহত্যার প্ররোচনার বিচার দাবি করেছি, অথচ বিচারের নামে করা হচ্ছে অবিচার। আমাদের মায়ের মতো ক্লাস শিক্ষক হাসনা হেনা আপাকে গ্রেফতার করে জেলে নেয়া হয়েছে। তার মুক্তি ছাড়া আমরা ক্লাসে ফিরে যাব না। ’


এদিকে একই দাবিতে গত শুক্রবার ও শনিবার বিক্ষোভ করেছেন। শনিবার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা ক্লাস বয়কট করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন।

সেই পরিপ্রেক্ষিতে আজ রবিবার কলেজ শাখার শিক্ষার্থীরা ক্লাসে না গিয়ে কলেজ ইউনিফর্ম পরে বেইলি রোডের ১নং গেটের সামনে রাস্তার পাশে বসে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।

 


দেখা গেছে, ‘আইন তোমাকে ধিক্কার, যদি নির্দোষ শিক্ষিকার স্থান হয় কারাগারে’; ‘ফিরব না ফিরব না, মাকে ছাড়া ফিরব না’; ‘মুক্তি চাই, মুক্তি চাই, আমার মায়ের মুক্তি চাই’; ‘মাকে ছাড়া ফিরব না’; ‘বিচার করতে গিয়ে কেন অবিচার’- এমন নানা স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড ফেস্টুন হাতে নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের চারপাশে অবস্থান করছেন অভিভাবকরা। তারাও শিক্ষার্থীদের দাবিতে স্লোগান দিচ্ছেন।


একই ভাবে শনিবার আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থীদের হাতে বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড রয়েছে। সেগুলোতে ‘আমার মায়ের অপমান মানবো না, মানবো না’; ‘আমার মা নির্দোষ, নির্দোষ, নির্দোষ’; ‘মুক্তি চাই মুক্তি চাই আমার মায়ের মুক্তি চাই’; ‘হাসিনা আপার মুক্তি চাই সুষ্ঠু তদন্ত চাই’; ‘যাদের হাতে মানুষ গড়া, তাদের কেন হাতকড়া’; ‘শিক্ষক যদি সম্মান না পায় এমন শিক্ষার দরকার কী?’; ‘মাকে ছাড়া ফিরবো না’; ‘অরিত্রী আমার বোন হলে, হেনা আপাও আমার মা’; ‘নির্দোষের মুক্তি চাই’য়ের মতো বিভিন্ন স্লোগান লেখা রয়েছে।


প্রসঙ্গত, গত সোমবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর শান্তিনগরের নিজ বাসায় ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয় শিক্ষার্থী অরিত্রি। মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল (ঢামেক) কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


অভিযোগ উঠেছে, পরীক্ষার সময় অরিত্রীর কাছে মোবাইল ফোন পাওয়ার পর তার বাবা-মাকে ডেকে নিয়ে ‘অপমান করেছিলেন’ অধ্যক্ষ। সে কারণে ওই কিশোরী আত্মহত্যা করেন। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, অরিত্রী রবিবার (২ ডিসেম্বর) বার্ষিক পরীক্ষায় মোবাইল ফোনে নকলসহ ধরা পড়েছিলেন। এ ঘটনার পর থেকে উত্তেজনা চলছে বেইলি রোডের এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে।


গত মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় ‘আত্মহত্যার প্ররোচণাকারী’ হিসেবে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার শিফট ইনচার্জ জিনাত আখতার ও প্রভাতী শাখার শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনার বিরুদ্ধে মামলা করেন অরিত্রীর বাবা।

 


এ ঘটনায় ভিকারুননিসার শিক্ষক আতাউর রহমান, খুরশিদ জাহান এবং গভর্নিং বডির সদস্য ফেরদৌসী বেগমকে নিয়ে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডি। পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পুলিশ ও র‌্যাবকে চিঠি দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর প্রেক্ষিতে ওই রাতেই হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে কারাগারে পাঠানো হয়। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন।


এ ব্যবস্থা নেয়ার পরও ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা স্কুলের সামনে দিনভর বিক্ষোভ দেখায়। তাদের দাবি ছিল, অরিত্রীর বাবা-মায়ের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে ভিকারুননিসা কর্তৃপক্ষকে। পাশাপাশি পরিচালনা পর্ষদের সব সদস্যকে পদত্যাগ করতে হবে।


এ পরিস্থিতিতে পর্ষদ চেয়ারম্যান গোলাম আশরাফ তালুকদার বৃহস্পতিবার বিকেলে শিক্ষার্থীদের সামনে গিয়ে ক্ষমা চেয়ে ধাপে ধাপে সব দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিলে আন্দোলনকারীরা ঘরে ফিরে যায়।


এদিকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে তিন শিক্ষককে বরখাস্তের পর প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ এবং প্রভাতী শাখার প্রধান পদে নতুন দুই শিক্ষককে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।   


প্রতিষ্ঠানটির নতুন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হয়েছেন কলেজ শাখার অর্থনীতির শিক্ষক সহকারী অধ্যাপিকা হাসিনা বেগম। আর প্রভাতী শাখার প্রধানের দায়িত্ব পেয়েছেন মহসিন তালুকদার।


ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান গোলাম আশরাফ তালুকদার শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে এ কথা জানান। বুধবার (৫ ডিসেম্বর) রাতে শিক্ষিকা হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করা হয়।

 


Top