যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি ভঙ্গ করলে বসে থাকবে না রাশিয়া: পুতিন | daily-sun.com

যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি ভঙ্গ করলে বসে থাকবে না রাশিয়া: পুতিন

ডেইলি সান অনলাইন     ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৭ টাprinter

যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি ভঙ্গ করলে বসে থাকবে না রাশিয়া: পুতিন

স্নায়ুযুদ্ধকালীন চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে গেলে বসে থাকবে না রাশিয়া। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, সে ক্ষেত্রে তাঁর দেশে নিষিদ্ধ হওয়া ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করা শুরু করবে।

গত বুধবার রুশ সংবাদমাধ্যমে এ কথা জানিয়েছেন পুতিন।

 

পুতিন বলেন, তার দেশের বিরুদ্ধে ন্যাটোর এ অভিযোগ চুক্তিটি থেকে আমেরিকার বেরিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত বহন করে।

 

স্নায়ুযুদ্ধ চলার সময় ১৯৮৭ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান ও রুশ নেতা মিখাইল গর্বাচেভের মধ্যে আইএনএফ চুক্তি সই হয়েছিল। চুক্তির আওতায় ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ৫০০ হতে সাড়ে পাঁচ হাজার কিলোমিটার পাল্লার পরমাণুবাহী ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি নিষিদ্ধ করা হয়। পরবর্তীতে দুই দেশ প্রায় ২,৭০০ মধ্যম পাল্লার পরমাণুবাহী ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করে।

 

 

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন টেলিভিশনে প্রচারিত এক ভাষণে আরো বলেছেন, বিশ্বের বহু দেশ আইএনএফ চুক্তিতে নিষিদ্ধ হওয়া সমরাস্ত্র তৈরি করছে।   তিনি বলেন, “এখন মনে হচ্ছে মার্কিন কর্মকর্তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, তাদেরও এ ধরনে অস্ত্র থাকা প্রয়োজন। ”

 

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, প্রয়োজনীয় পরিবর্তনের দায় এখন রাশিয়ার। শুধু তারা এখন এই চুক্তি বাঁচাতে পারে।

 

এর আগে চুক্তি মানতে মঙ্গলবার রাশিয়াকে ৬০ দিনের সময় বেঁধে দেয় মার্কিন প্রশাসন। অন্যথায় তারা চুক্তির ইতি টানার হুমকি দিয়েছে। অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে ১৯৮৭ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি নিয়ে একে-অপরকে পাল্টাপাল্টি হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া।

 

 ন্যাটো সম্প্রতি অভিযোগ করে বলেছে যে, আইএনএফ চুক্তি ভঙ্গ করেছে রাশিয়া। এই চুক্তির আওতায় দুই দেশের স্বল্প ও মধ্য পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উত্পাদন নিষদ্ধি করা হয়েছিল। পুতিন অবশ্য বলেন, আইএনএফ চুক্তি থেকে বের হয়ে যাওয়ার বাহানা হিসেবেই এমন অভিযোগ করা হচ্ছে।

 

সর্বশেষ ২০০২ সালে অস্ত্রবিষয়ক চুক্তি থেকে বেরিয়ে গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। ওই সময় তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি থেকে বের হয়ে যায়।


Top