বেগম জিয়ার সঙ্গে টক্করে এবার হিরো আলম! | daily-sun.com

বেগম জিয়ার সঙ্গে টক্করে এবার হিরো আলম!

ডেইলি সান অনলাইন     ১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ০৯:৩০ টাprinter

বেগম জিয়ার সঙ্গে টক্করে এবার হিরো আলম!

আসন্ন জাতীয় সংসদ নিবার্চনকে সামনে রেখে চলছে বিভিন্ন দলের মনোনয়নপত্র বিতরণ। এই দিকে প্রস্তুত যোগাযোগ মাধ্যমের জনপ্রিয় মুখ হিরো আলমও।

 

এরিমধ্যে আসন্ন নিবার্চনে অংশগ্রহণ করতে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়নপত্র কিনেছেন হিরো আলম। নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা অনেক আগে জানিয়েছিলেন তিনি। এবার বগুড়া-৬ আসন থেকে এমপি নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এই তারকা।

 

এদিকে যে আসন থেকে হিরো আলম নির্বাচন করতে চাচ্ছেন সেই আসনসহ (বগুড়া-৬, বগুড়া-৭ এবং ফেনী-১) তিনটি আসন থেকে ইতিমধ্যে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

 

অতএব বেগম জিয়া যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ পান তবে তাকে ভোটের মাঠে লড়াই করতে হবে হিরো আলমের বিরুদ্ধে।

 

গত সোমবার (১২ নভেম্বর) বিকেল পাঁচটায় হিরো আলম ঢাকার জাতীয় পার্টি কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

 

এই সময় জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের ও পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য চিত্রনায়ক মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা তার হাতে মনোনয়ন ফরম তুলে দেন।  

 

জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন ব্যাপারে হিরো আলম বলেন, প্রথম থেকেই বগুড়া-৬ সদর আসনে নির্বাচন করার কথা বলেছিলাম। যেকারণে সেখান থেকেই নির্বাচন করব।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ভালো লাগে। জাতীয় পার্টির মানুষকে কথা দিলে, রাখে। এজন্য লাঙ্গলের প্রার্থী হতে চাই আমি।

 

নির্বাচনের বিষয়ে হিরো আলম বলেন, ‘আমি নিজে গরিব, আমি গরিবের কষ্ট বুঝি। মানুষের উপকারে আসার চেষ্টা করি সব সময়। অসংখ্য মানুষের ভালোবাসা পেয়ে আমি আজকের হিরো আলম হয়েছি। নিজের জনপ্রিয়তা দিয়েই এমপি হতে চাই। আমার গর্ব আমি বগুড়ার সন্তান। তাই বগুড়া নিয়েই আমার স্বপ্ন বেশি। আমি এলাকার মানুষের সঙ্গে থাকতে চাই। ’’ উল্লেখ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠার আগে থালা-বাসন বিক্রি করতেন এই অভিনেতা ৷

 

তিনি আরো বলেন, আমার গর্ব আমি বগুড়ার সন্তান। তাই বগুড়া নিয়েই আমার স্বপ্ন বেশি। আমি এলাকার মানুষের সঙ্গে থাকতে চাই। নিজের জনপ্রিয়তা দিয়েই এমপি হতে চাই। ’

 

আলম বলেন, ‘আমি আগে থেকেই একটু বেশি সাহসী তা তো আপনারা জানেনই। আমার জীবনে ব্যর্থতা বলতে কিছু নেই। ইনশাল্লাহ এখানেও আমি আশাবাদী। ’

 

তিনি বলেন, ‘আগেও বলেছি এখনো বলছি, চেহারা দেখে মানুষের বিচার করা যায় না। প্রতিভা আর ইচ্ছা শক্তিই সবকিছু। দুইবার নিজ এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছি। আমি মনে করি, এটা আমার বিজয়। এলাকার মানুষ আমাকে ভালোবাসে তার প্রমাণ পেয়েছি। ’ একাদশ সংসদ নির্বাচনেও ভোটারদের ভালোবাসার প্রতিফলন ঘটাবে এবং আমাকে নির্বাচিত করবে বলেও আমার বিশ্বাস। ’

 

 আলম আরো বলেন, ‘আমি নিজে গরিব, আমি গরিবের কষ্ট বুঝি। মানুষের উপকারে আসার চেষ্টা করি সব সময়। অসংখ্য মানুষের ভালোবাসা পেয়ে আমি আজকের হিরো আলম।

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় আছেন অথচ হিরো আলমকে চেনেন না, এই প্রজন্মের বাঙালিদের মধ্যে সেই সংখ্যাটা খুবই কম ৷ সোশ্যাল মিডিয়াযর কল্যাণে বাংলাদেশের হিরো আলমের পরিচয়ের পরিধিটা সুবিস্তৃত হয়ে গিয়েছে ৷ সেই হিরো আলম ওরফে আশরাফুল আলম এ বার বেগম জিয়ার বিপক্ষে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ ডিসেম্বর।


Top