যেভাবে গ্রেফতার হন ব্যারিস্টার মইনুল | daily-sun.com

যেভাবে গ্রেফতার হন ব্যারিস্টার মইনুল

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:৪৭ টাprinter

যেভাবে গ্রেফতার হন ব্যারিস্টার মইনুল

 

রংপুরে দায়ের করা একটি মানহানির মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। সোমবার (২২ অক্টোবর) রাত ৯টা ২৫ মিনিটে ডিবি পুলিশের একটি দল রাজধানীর উত্তরায় জেএসডি নেতা আ স ম আবদুর রবের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।


মইনুলকে গ্রেফতারে বিকাল থেকেই তাদের আয়োজন পাকাপাকি হয়। তারপর সন্ধ্যার পর থেকে পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ রবের বাসার দিকে যায়। ওই বাসায় মইনুল অবস্থান করছিলেন।


পরে তাকে গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকে গ্রেফতার করা হবে জানিয়ে একটি এসএমএস পাঠানো হয়।


ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মাহবুব আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, ব্যারিস্টার মইনুলকে রংপুরে দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) তাকে আদালতে নেয়া হবে।


একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে সক্রিয় আছেন ব্যারিস্টার মইনুল। রবসহ ফ্রন্টের বিভিন্ন নেতার বাড়িতে বৈঠকে তার নিয়মিত যাতায়াত।


জানা গেছে, সোমবার সন্ধ্যার পর আ স ম রবের সাথে সাক্ষাত করতে তার উত্তরার বাসায় যান মইনুল৷ কিন্তু রব তখন বাসায় ছিলেন না। মইনুল সেখানে কিছুক্ষণ রবের জন্য অপেক্ষা করেন। রব বাসায় ফেরার কিছুক্ষন পরই ডিবি পুলিশের সদস্যরা তার বাসা ঘিরে ফেলে।


উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা মইনুলের বিরুদ্ধে রংপুরের একটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকার কথা জানান। এরপরই মইনুলকে গ্রেফতার করে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়৷


আ স ম আব্দুর রবের স্ত্রী তানিয়া রব বলেন, ‘আমরা বাসায় ছিলাম না। রাতে এসে দেখি অনেক লোক, একটু আবাকই হলাম। আজ কোনো মিটিং ছিল না। ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এমনিতেই এসেছিলেন। রাত পৌনে ১০টার দিকে তাকে ডিবি পুলিশ নিয়ে গেছে। ’


রংপুরের মামলায় জামিন ছিল না মইনুলের: গত ১৬ অক্টোবর একাত্তর টেলিভিশনের  টক শো ‘একাত্তরের জার্নাল’ এ অংশ নেন সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি এবং বিএনপি নেতা সাখাওয়াত হোসেন সায়ন্ত। টক শো ‘একাত্তরের জার্নাল’ এর উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে যুক্ত করার পর মাসুদা ভাট্টি তার কাছে একটি প্রশ্ন করতে চান এবং জানতে চান- ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আপনি যে হিসেবে উপস্থিত থাকেন- আপনি বলেছেন আপনি নাগরিক হিসেবে উপস্থিত থাকেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলছেন, আপনি জামায়াতের প্রতিনিধি হয়ে সেখানে উপস্থিত থাকেন। ’

 
মাসুদা ভাট্টির এই প্রশ্নে রেগে গিয়ে মইনুল হোসেন বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই। আমার সঙ্গে জামায়াতের কানেকশনের কোনো প্রশ্নই নেই। আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা আমার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর। ’


পরে ওই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে রবিবার (২১ অক্টোবর) সকালে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূরের আদালতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি বাদী হয়ে মামলা করেন। ওই মামলায় ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।


অন্যদিকে মইনুলের একই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে জামালপুর ও কুড়িগ্রামে তার বিরুদ্ধে আরও দুটি মানহানির মামলা করা হয়েছে।


তবে ঢাকা ও জামালপুরের মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন পান ব্যারিস্টার মইনুল। আর কুড়িগ্রামের মামলায় হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেছেন তিনি।


এছাড়া ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এক নারী সাংবাদিক মামলা দায়ের করেছেন। আয়েশা আহমেদ লিজা নামের ওই সাংবাদিক সোমবার (২২ অক্টোবর) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালতে এই মামলা দাখিল করেন।


তবে রংপুরের মামলাটিতে জামিন ছিল না বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

 

আরও পড়ুন:

 

আমার চাওয়া প্রচলিত আইনে মইনুল হোসেনের বিচার হোক: মাসুদা ভাট্টি

 

রবের বাসা থেকে মইনুল হোসেনকে গ্রেপ্তার

 

ভোলায় মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে ৫০ কোটি টাকার মানহানি মামলা

 

এবার মাসুদা ভাট্টির বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবেন মইনুল হোসেন

 

এবার মইনুলের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মামলা

 

তস‌লিমার সমা‌লোচনার জবা‌বে যা বল‌লেন মাসুদা ভা‌ট্টি

 

পৃথক দু’টি মানহানির মামলায় ৫ মাসের জামিন পেলেন ব্যারিস্টার মইনুল

 

ঢাকায়ও ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

 

এবার মইনুলের বিরুদ্ধে মাসুদার মানহানি মামলা

 

ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা


ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন প্রকাশ্যে ক্ষমা না চাইলে আইনি ব্যবস্থা: নারী সাংবাদিক কেন্দ্র


মাসুদা ভাট্টির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা ব্যারিস্টার মইনুলের

 

 


Top