বাংলাদেশের বাজেট ব্যয়ের অর্ধেকই দারিদ্র্য বিমোচনের সন্নিবেশিত: রাষ্ট্রদূত মাসুদ | daily-sun.com

বাংলাদেশের বাজেট ব্যয়ের অর্ধেকই দারিদ্র্য বিমোচনের সন্নিবেশিত: রাষ্ট্রদূত মাসুদ

ডেইলি সান অনলাইন     ১৮ অক্টোবর, ২০১৮ ১৭:৪৩ টাprinter

বাংলাদেশের বাজেট ব্যয়ের অর্ধেকই দারিদ্র্য বিমোচনের সন্নিবেশিত: রাষ্ট্রদূত মাসুদ

বিগত নয় বছরে বাংলাদেশের বাজেট ব্যয়ের প্রায় অর্ধেকই কোনো না কোনোভাবে দারিদ্র্য বিমোচনের সাথে সন্নিবেশিত ছিল, বলেছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

 

গতকাল বুধবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে চলতি ৭৩তম অধিবেশনের দ্বিতীয় কমিটিতে ‘দারিদ্র্য বিমোচন ও অন্যান্য উন্নয়ন ইস্যু’ শীর্ষক এক আলোচনায় তিনি একথা বলেন।

 

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

 

স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, ‘এমডিজি অর্জনের সফলতায় বিশেষ করে দারিদ্র্য বিমোচনে সফলতার জন্য আমরা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন করেছি। ’

 

২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উপনীত হওয়ার লক্ষ্যে জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনার সাথে একীভূত করে এসডিজি’র বাস্তবায়নও ত্বরান্বিত করা হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

 

‘টেকসই উন্নয়নের ধারণা অধরাই থেকে যাবে যদি আমরা দারিদ্র্যমুক্ত বিশ্ব গড়ে তোলার প্রচেষ্টায় ব্যর্থ হই’- গত বছর এসডিজি’র বাস্তবায়ন অগ্রগতি বিষয়ক (ভিএনআর) জাতীয় রিপোর্টে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র এ উক্তি’কে উদ্ধৃত করে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন, ‘সামগ্রিক ও জনগণ কেন্দ্রিক উন্নয়ন নীতি গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার দারিদ্র্য ২১ দশমিক ৪ শতাংশে এবং অতি-দারিদ্র্য ১১ দশমিক ৩ শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। মাথাপিছু আয় ১৭৫২ মার্কিন ডলার আর জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। ’

 

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে সামগ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে দারিদ্র্য মোকাবিলায় ‘আমাদের সুদৃঢ় প্রতিজ্ঞার ফলেই এবার প্রথমবারের মতো এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ’।

 

মাসুদ বিন মোমেন আরও বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান সরকার স্বাস্থ্য বিষয়ক এসডিজি অর্জনের লক্ষ্যে স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টিখাতের জন্য ২০১৭-২০২২ মেয়াদে ১৪ দশমিক ৭১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে।

 

তিনি বলেন,সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিকে একত্রিত করে প্রথমবারের মতো বর্তমান সরকার দেশে ব্যাপকভিত্তিক  জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশল প্রণয়ন করেছে। ৬৫ লাখ বয়স্ক নারী-পুরুষ, বিধবা, স্বামী পরিত্যক্তা মহিলা ও প্রতিবন্ধীরা নিয়মিতভাবে ভাতা পাচ্ছেন।

 

স্থায়ী প্রতিনিধির বক্তৃতায় যুব উন্নয়ন, দক্ষতা উন্নয়ন, কর্মসংস্থান বিশেষ করে ২০২০ সালের মধ্যে অতিরিক্ত ১ কোটি ২৯ লাখ কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি, ১০০ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আরও ১ কোটি কর্মসংস্থান, প্রবাসী কর্মীদের জন্য ২০ লাখ চাকুরির সুযোগ সৃষ্টিসহ শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের গৃহীত দারিদ্র্য বিমোচন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের নানা দিক তুলে ধরা হয়।

 

বাংলাদেশে রপ্তানি খাতে ২০২০ সালের মধ্যে ১২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির আশাবাদ কথা ব্যক্ত করেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ। তিনি বলেন, দেশের তৈরি পোশাক খাতের ৪৫ লাখ কর্মীর ৮৫ শতাংশই নারী যা নারীর ক্ষমতায়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে।

 

সম্প্রসারিত বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা, সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার এবং তথ্য-প্রযুক্তির বিপ্লব, প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাংকিং সুবিধার সম্প্রসারণ বাংলাদেশের নগর ও গ্রামীণ অর্থনীতিতে ব্যাপক ইতিবাচক পদক্ষেপ ফেলেছে এবং একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্প ও ক্ষুদ্র সঞ্চয় প্রকল্প গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচনে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখছে বলেও উল্লেখ করেন স্থায়ী প্রতিনিধি।

 

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য হুমকি এ কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন,‘আমরা জলবায়ুর পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় জিডিপির ১ শতাংশ ব্যয় করছি এবং মেগা প্রকল্প ‘ডেল্টা প্ল্যান-২১০০ হাতে নিয়েছি’।

 

রাষ্ট্রদূত মাসুদ দারিদ্র্য বিমোচনকে অংশীদারিত্ব ভিত্তিক দায়িত্ব হিসেবে অভিহিত করে সক্ষমতা বিনির্মাণ, সম্পদ ও প্রযুক্তি হস্তান্তর, তথ্য ধারণ ক্ষমতা বিনির্মাণসহ প্রয়োজনীয় সহযোগিতার মাধ্যমে উন্নয়ন সহযোগী দেশসমূহকে দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশ গৃহীত পদক্ষেপের পাশে দাঁড়ানোরও আহ্বান জানান।


Top