২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়: আদালতে বিচারক | daily-sun.com

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়: আদালতে বিচারক

ডেইলি সান অনলাইন     ১০ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:০২ টাprinter

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়: আদালতে বিচারক

 

পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা রোডের বিশেষ আদালতে উপস্থিত হয়েছেন বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন। এছাড়া রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবীরাও সেখানে উপস্থিত হয়েছেন।

পুলিশি পাহারায় বুধবার (১০ অক্টোবর) সকাল ১০টা ২০ মিনিটে বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন নাজিমুদ্দিন রোডের বিশেষ ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত হন।


এর আগে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সেখানে উপস্থিত হন।


সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার আসামিদের বিশেষ নিরাপত্তায় আলিয়া মাদরাসা প্রাঙ্গণে নেয়া হয়।


এদিকে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘিরে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের বিশেষ ট্রাইব্যুনাল এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়। বুধবার সকাল থেকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা রোডের বিশেষ আদালতের চারদিকের সব রাস্তা প্রায় বন্ধ করে দেয়া হয়। সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যারিকেড বসিয়ে তল্লাশি মাধ্যমে মানুষজনকে প্রবেশের অনুমতি দিচ্ছে।


সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত কাউকে আদালতে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।


২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় হবে রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালতে।


২১ আগস্টের ঘটনায় পৃথক মামলায় মোট আসামির সংখ্যা ৫২ জন।

এর মধ্যে তিনজন আসামির অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ায় তাদের নাম বাদ দেয়া হয়েছে। তারা হলেন- জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নান ও তার সহযোগী শরীফ সাহেদুল আলম বিপুল।


৪৯ আসামির মধ্যে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, তাজউদ্দিনসহ ১৮ জন পলাতক রয়েছেন। বিএনপি নেতা সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ২৩ জন কারাগারে রয়েছেন।


গ্রেনেড হামলার ওই ঘটনায় হত্যা, হত্যাচেষ্টা, ষড়যন্ত্র, ঘটনায় সহায়তাসহ বিভিন্ন অভিযোগে একটি মামলার আসামি সংখ্যা মোট ৪৯ জন। একই ঘটনায় ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনে (সংশোধনী-২০০২) অপর একটি মামলায় আসামি সংখ্যা ৩৮ জন।


২০০৪ সালের ২১ অগাস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের সমাবেশে হয়েছিল গ্রেনেড হামলা; তাতে ২৪ জন নিহত এবং কয়েকশ আহত হন। প্রাণে বেঁচে গেলেও ক্ষতিগ্রস্ত হয় শেখ হাসিনার শ্রবণশক্তি।


বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমলে তদন্ত ভিন্ন খাতে প্রবাহিতের চেষ্টার পর তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে জঙ্গিনেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ২২ জনকে আসামি করে মামলার অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি।


দুই বছর পর ২০০৯ সালে মামলার অধিকতর তদন্তের আদেশ হলে আরও দুই বছর সময় নিয়ে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেন সিআইডি কর্মকর্তা আবদুল কাহার আকন্দ।


সম্পূরক অভিযোগপত্রে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেকসহ ৩০ জন আসামির তালিকায় যোগ হন। সব মিলিয়ে আসামির সংখ্যা দাঁড়ায় ৫২ জনে। এর মধ্যে জামায়াত নেতা আলী আহসান মো. মুজাহিদ, জঙ্গিনেতা মুফতি হান্নান ও বিপুলের অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ায় আসামি এখন ৪৯ জন।

 


Top