লাইসেন্সবিহীন চালকদের মুখে পোড়া ইঞ্জিন অয়েল! | daily-sun.com

লাইসেন্সবিহীন চালকদের মুখে পোড়া ইঞ্জিন অয়েল!

ডেইলি সান অনলাইন     ৭ অক্টোবর, ২০১৮ ১৮:৫২ টাprinter

লাইসেন্সবিহীন চালকদের মুখে পোড়া ইঞ্জিন অয়েল!

 

রাস্তায় লাইসেন্সবিহীন গাড়িচালক পেলেই সঙ্গে সঙ্গে গাড়ি থেকে নামিয়ে মুখমণ্ডলে মাখিয়ে দেয়া হচ্ছে পোড়া ইঞ্জিন অয়েল। রবিবার (৭ অক্টোবর) সড়ক পরিবহন আইনের সংশোধনসহ সাত দফা দাবি আদায়ে ঢাকা বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পণ্য পরিবহন ধর্মঘটে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী-পোস্তগোলা সড়কে ট্রাক-লরি-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন এ কর্মসূচি শুরু করেছে।


দেখা গেছে, শ্রমিকরা সড়কে চলাচল করা গাড়ি থামিয়ে চালকদের লাইসেন্স পরীক্ষা করছেন। যেসব চালকের লাইসেন্স নেই, তাদের নাকে-মুখে পোড়া ইঞ্জিন অয়েল মেখে দিচ্ছেন তারা। আর যাদের কাছে বৈধ লাইসেন্স পাওয়া যাচ্ছে, তাদের গাড়ি চালানো বন্ধ করে আন্দোলনে নামার জন্য বলপ্রয়োগ করা হচ্ছে।


সম্প্রতি জাতীয় সংসদে পাস হওয়া সড়ক পরিবহন আইনের প্রতিবাদে মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ আজ থেকে সারা দেশে প্রতিবাদ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য পণ্য পরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন।


আন্দোলনকারীরা জানান, নতুন সড়ক পরিবহন আইনে সড়ক দুর্ঘটনায় অপরাধ প্রমাণ হওয়া সাপেক্ষে একজন চালকের সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। এ ছাড়া এই আইনে সড়ক দুর্ঘটনায় কারও মৃত্যু হলে ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার বিধান আছে। সে ক্ষেত্রে অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড।


এমন বিধান মাথায় নিয়ে আমরা গাড়ি চালাব কী করে? এই আইন বাতিল করতে হবে।

এই আইন বাতিল না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানান তারা।


শনিবার (৬ অক্টোবর) রাজধানীর তেজগাঁও ট্রাক টার্মিনালে এ পণ্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয় ‘পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’।


দাবির মধ্যে রয়েছে- সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সংশোধন করা; সড়ক দুর্ঘটনায় ৩০২ ধারায় মামলা গ্রহণ না করা; ৫ লাখ টাকা জরিমানার বিধান বাতিল ও জামিনযোগ্য ধারায় মামলা করা; টাঙ্গাইল জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সদস্য হাসমত আলীসহ মালিক ও শ্রমিক মুক্তি; পুলিশের হয়রানি বন্ধ করা; গাড়ির কাগজপত্র চেকিংয়ের জন্য নির্দিষ্ট স্থান নির্ধারণ করা; পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধাসংবলিত ট্রাক টার্মিনাল বা স্ট্যান্ড নির্মাণ করা; গাড়ির মডেল বাতিল করতে হলে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেয়া; সহজ শর্তে ভারী যানবাহন চালককে ভারী লাইসেন্স দেয়া ও এর আগপর্যন্ত হালকা বা মধ্যম লাইসেন্স দিয়ে ভারী যানবাহন চালানোর সুযোগ দেয়া; সারা দেশে গাড়ির ওভারলোডিং বন্ধ করা এবং ফুটপাত, ওভারব্রিজ, আন্ডারপাস ও জেব্রাক্রসিং ব্যবহার নিশ্চিত করা।

 


Top