প্রয়োজনে মাইক ফিট করে দেবো কিন্তু রাস্তায় চেচাঁমেচি করতে দেব না: কাদের | daily-sun.com

প্রয়োজনে মাইক ফিট করে দেবো কিন্তু রাস্তায় চেচাঁমেচি করতে দেব না: কাদের

ডেইলি সান অনলাইন     ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:৩১ টাprinter

প্রয়োজনে মাইক ফিট করে দেবো কিন্তু রাস্তায় চেচাঁমেচি করতে দেব না: কাদের

- ফাইল ফটো

 

সোহরাওয়ার্দীতে মুক্তমঞ্চ এবং প্রয়োজনে মাইক ফিট করে দেবো কিন্তু রাস্তায় চেচাঁমেচি করতে দেয়া হবে না বলে উল্লেখ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি।


ওবায়দুল কাদের বলেন, রাস্তায় অবরোধ করে কোনো সভা সমাবেশ করতে দেয়া হবে না। আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সবার জন্য উন্মুক্ত। সেখানে প্রয়োজনে মুক্তমঞ্চ করে দেয়ার কথাও বলেছেন, যার যা খুশি বলতে পারবেন। দরকার হলে আমরা মাইকও ফিট করে দেব। কিন্ত রাস্তায় চেঁচামেচি করতে দেব না, আমরাও করবো না, আপনাদেরও দেব না।   


ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি আন্দোলনের ডাক দিয়ে পুলিশের গতিবিধি কড়া না নরম এ খবর নিতে যায়। এরাই হচ্ছে নেতা, এরা আন্দোলন করবে। আন্দোলনের মরাগাঙ্গে ১০ বছরে ঢেউ আসেনি এখন এক মাসে কি করে আসবে। এখন কর্মীদের চাঙ্গা করার জন্য আন্দোলনের নামে চিৎকার চেঁচামেচি করছে।


পত্রিকার মালিক, সম্পাদকদের উদ্দেশ্যে করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমার অনুরোধ যা দেখবেন, যা শুনবেন তাই লিখবেন। কেন বলছি, গতকাল ১৪ দলের সমন্বয়ক আমাকে বলেছেন তারা কর্মী সমাবেশ করছেন। কিন্তু আপনারা একে সমাবেশ বলছেন কেন? সমাবেশ বানিয়ে বিএনপির সঙ্গে পাল্টাপাল্টিতো আমরা করবো না। পাল্টাপাল্টি করলে কি আমরা নাট্যমঞ্চে করবো? এটা সমাবেশ নয়, এটা হচ্ছে কর্মী সমাবেশ। এসব বিষয়গুলো বিভ্রান্তির সৃষ্টি করে।


তিনি বলেন, মির্জা ফখরুলের নেতৃত্বে জাতিসংঘের নিচের সারির কর্মকর্তার সঙ্গে দেখা করেছিলেন, এসে বলেছিলেন জাতিসংঘ নাকি তাদের পক্ষে দাঁড়াবে। গতকাল শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেছেন বাংলাদেশে আজ যে পরিস্থিতি বিরাজমান এ জন্য শেখ হাসিনার সরকার ও জনগণের প্রতি পূর্ণ আস্থা ও সহযোগিতা করবেন। এটা আমরা বিএনপির মতো বানিয়ে বলছি না, দেশ ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সংবাদ আছে।


ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে সবার মন খারাপ কারণ বিতর্কিত সিদ্ধান্তে আমরা ক্রিকেটে হেরে গেলাম। কিন্তু আমরা হারিনি, আমরা হারবো না। বাংলাদেশের টাইগাররা চোট খেয়েছে কিন্তু এশিয়া কাপের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কয়েকবারে চ্যাম্পিয়ন ভারতের সঙ্গে লড়াই করেছে। শেষ বল পর্যন্ত ঘাম ঝরানো বিজয় ভারতকে দেখতে হয়েছে।


প্রসঙ্গত, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লিটন দাসকে কোনোভাবেই যখন ভারতীয় বোলাররা পরাস্ত করতে পারছিল না। চার-ছক্কার ফুলঝুরিতে সেঞ্চুরি করা লিটন দাসের ওপর তখন বিতর্কিত এক সিদ্ধান্তের খড়্গ নেমে আসে।  


৪১তম ওভারের শেষ বলে (কুলদীপ যাদবের) এগিয়ে মারতে চেয়েছিলেন লিটন। রিপ্লেতে দেখা গেছে, প্রথম পর্যায়ে পা ঠিক না থাকলেও ধোনি বল স্ট্যাম্পিং করার আগে নিরাপদে পা ছিল লিটন দাসের। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে থার্ড আম্পায়ার লিটন দাসকে আউট ঘোষণা করেন।


 শুক্রবার রাতে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জয়ের আশা জাগিয়েও শ্বাসরুদ্ধকর শেষ বল রোমাঞ্চে তিন উইকেটে শক্তিশালী ভারতের কাছে হেরেছে মাশরাফি বাহিনী।

 


Top