দুর্নীতিবাজদের বাঁচাতেই তথাকথিত জাতীয় ঐক্য হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী | daily-sun.com

দুর্নীতিবাজদের বাঁচাতেই তথাকথিত জাতীয় ঐক্য হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ডেইলি সান অনলাইন     ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১২:০৮ টাprinter

দুর্নীতিবাজদের বাঁচাতেই তথাকথিত জাতীয় ঐক্য হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

 

দুর্নীতিবাজদের বাঁচাতেই তথাকথিত জাতীয় ঐক্য হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, যারা মানুষ হত্যাকারীদের সঙ্গে জোট করতে পারে, তাদের মুখে দেশের স্বার্থের কথা মানায় না।

 দেশের উন্নয়ন চাইলে আগামীতেও নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সময় রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় হিলটন মিডটাউন হোটেলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


তিনি বলেন বলেন, নিজেদের অপকর্মের ফল পাচ্ছে বিএনপি। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা তো আমরা দেই নাই। আদালতে নিজেদের নিরাপরাধ প্রমাণ করাও তাদেরই দায়িত্ব।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, সমাজের শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে; এতে কারোর উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই। সাংবাদিকরা নিজেদের স্বার্থেই এনিয়ে সমালোচনা করছে।


শেখ হাসিনা বলেন, দেশের বর্তমান প্রবৃদ্ধির হার ৭.৮৬ শতাংশে উন্নীত করেছে সরকার। একইসাথে, মূল্যস্ফীতি কমিয়ে এনেছে ৫.৪ শতাংশে।

সুতরাং, দেশের উন্নয়নের স্বার্থেই নির্বাচনে নৌকাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করা উচিৎ।


এর আগে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম সভায় যোগ দিতে লন্ডনে এক দিনের যাত্রা বিরতি শেষে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে নিউইয়র্কের লিবার্টি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তাকে স্বাগত জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন ও যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন।


সেখান থেকে সফরসঙ্গীদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কের গ্র্যান্ড হায়াৎ হোটেলে যান। এ সময় সেখানে সমবেত নেতা-কর্মী ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা তাকে স্বাগত জানায়।


জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের এবারের সভায় প্রধানমন্ত্রী ১৯৩টি দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের সামনে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে বিশ্ব সম্প্রদায়কে জোরালো ভূমিকার আহ্বান জানাবেন বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।


এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম সভায় যোগ দিতে ১০ দিনের সফরে শুক্রবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা ২০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্রিটিশ রাজধানী লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামাল, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, তিন বাহিনী প্রধান, উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।


জাতিসংঘে এবারের সফরে ৫০ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ব্যবসায়ীদের ২০০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলও তার সফরসঙ্গী হয়েছে।


উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী ২৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন এবং একই দিন তাঁর জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে।


জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সাইড লাইনে প্রধানমন্ত্রীর একাধিক বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের কথা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন- এস্তোনিয়ার প্রেসিডেন্ট ক্রেস্টি কালজুলেইদ এবং নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট।


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগামী ১ অক্টোবর সকালে লন্ডন হয়ে দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

 


Top