২২ দিনে গায়েবি মামলায় আসামি ৩,২৫০০০: রিজভী | daily-sun.com

২২ দিনে গায়েবি মামলায় আসামি ৩,২৫০০০: রিজভী

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:৩৮ টাprinter

২২ দিনে গায়েবি মামলায় আসামি ৩,২৫০০০: রিজভী

 

পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে গায়েবি মামলায় বিএনপির তিন লাখ ২৫ হাজার নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ। তিনি বলেন, গায়েবি মামলার ছড়াছড়িতে সারাদেশে আতঙ্কের পরিবেশ বিরাজ করছে।

রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার‌্যালয়ে আয়োজিত নিয়মিত সংবাদ  সম্মেলনে এ তথ্য জানান রিজভী।


তিনি বলেন, গত তিন/চারদিনে রাজধানীর দুটি থানায় সাতটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় বিএনপির আইনজীবীসহ এর অঙ্গ-সংগঠনের প্রায় ১৫ শতাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। সারাদেশব্যাপী প্রায় ১৬ শতাধিক নেতাকর্মীর নামে মামলা দায়ের হয়েছে। গায়েবি মামলার ছড়াছড়িতে সারাদেশে আতঙ্কের পরিবেশ বিরাজ করছে।


রিজভী বলেন, মামলার ব্যাপক বিস্তারে সরকার যেন জনগণের ওপর প্রেতাত্মাসুলভ আচরণ করছে। মূলত এই দেশে মানুষের জীবনমান উন্নয়নের বরকত নেই, আছে শুধু মিথ্যা মামলার বরকত। বিরোধী মত ও শক্তিকে কষ্ট দেয়া, জুলুম করা আওয়ামী লীগের স্বধর্ম। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে পর্যদুস্তের জন্য সরকার এহেন অমানবিক পদ্ধতি নেই, যা তারা ব্যবহার করে না।

আমরা এরই চরম প্রকাশ দেখতে পাই ২১ আগস্ট বোমা হামলা মামলায় দীর্ঘদিন পর অধিকতর তদন্তের নামে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে জড়ানোর ঘটনায়।


রিজভী বলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতিকে বন্দুকের নলের মুখে দেশত্যাগে বাধ্যের পর সম্প্রতি প্রকাশিত গ্রন্থে এস কে সিনহা সাহেবের প্রতি সরকারের আচরণের যে ঘটনাগুলো বেরিয়ে আসছে তাতে দেশ-বিদেশে সমালোচনার ঝড় বইছে। নিজের ক্ষমতা কুক্ষিগতের জন্যই সাবেক প্রধান বিচারপতিকে দেশ থেকে বিতাড়িত করেছেন। আর এটি করতে গিয়ে বিশ্বদরবারে শেখ হাসিনা কলঙ্কিত হয়েছেন। এই ঘটনা বিচার বিভাগের ওপর ব্যক্তি শেখ হাসিনার ভয়ঙ্কর আক্রমণ। বিচার বিভাগের ওপর আধিপত্য বিস্তারই এই আক্রমণের মূল লক্ষ্য। জোর করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে প্রধান বিচারপতিকে দেশ থেকে বিতাড়নের মাধ্যমে শেখ হাসিনা এখন সম্রাজ্ঞীতে পরিণত হয়েছেন।


তিনি বলেন, সর্বশেষ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে গণমাধ্যমের গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস দিতে যাচ্ছেন। গণতন্ত্রের মুখোশটুকু ছুঁড়ে ফেলে গণতন্ত্রের শেষ চিহ্ন মুছে দিয়েছেন। ফলে সম্রাজ্ঞী’র শাসন এখন পুরোদমে চলছে।


সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে দলের ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আযম খান, উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূইয়া, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী সদস্য শামসুজ্জামান সুরুজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 


Top