পূর্বাচলে নিহতদের মাওয়ায় ‘যাত্রীবাহী বাস থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল’ | daily-sun.com

পূর্বাচলে নিহতদের মাওয়ায় ‘যাত্রীবাহী বাস থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল’

ডেইলি সান অনলাইন     ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৮:১৫ টাprinter

পূর্বাচলে নিহতদের মাওয়ায় ‘যাত্রীবাহী বাস থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল’

 

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে পূর্বাচল উপশহর থেকে উদ্ধার গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত তিন যুবকের পরিচয় মিলেছে। নিহতরা হলেন- রাজধানীর নিকুঞ্জ এলাকার শহীদুল্লাহর ছেলে সোহাগ ভুইয়া (৩২), মুগদা মান্ডা এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে শিমুল আজাদ (৩০)।

একই এলাকার আব্দুল ওয়াহাবের ছেলে ও শিমুল আজাদের ভায়রা নুর হোসেন বাবু (৩০)। তার গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ির এলাকায়।


স্বজনদের দাবি, বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) শিমুল আজাদের গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ বেড়াতে যাওয়ার জন্য বের হয় তিনজন। যাওয়ার পথে মাওয়া ফেরী পার হওয়ার পর ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তাদেরকে যাত্রীবাহী বাস থেকে নামিয়ে তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তারা নিখোঁজ ছিলেন।


এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, শুক্রবার সকালে পূর্বাচল উপশহরের আলমপুর এলাকার ১১ নম্বর ব্রিজ এলাকায় সড়কের পাশে তিন যুবকের লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকার লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ খবর পেয়ে ওই এলাকা থেকে তিন যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে নিহতের স্বজনেরা রূপগঞ্জ থানায় ছুটে আসেন। তারা স্বজনদের এসে নিহতের লাশ শনাক্ত করেন।


শিমুলের স্ত্রী আয়েশা আক্তার আন্না বলেন, ‘বুধবার বেড়াতে যাওয়ার পথে ডিবি পুলিশ পরিচয় তাদেরকে যাত্রীবাহী বাস থেকে নামিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর থেকে তারা নিখোঁজ ছিল। তারা কোনও রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। ’


নিহত তিনজনই বন্ধু ছিলেন। তারা রাজধানীতে ঝুটের (ওস্টেজ কাপড়ের টুকরার) ব্যবসা করতেন।


রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির জানান, নিহতদের মাথা ও শরীরে গুলির চিহ্ন রয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। ধারণা করা হচ্ছে, হত্যার পর লাশগুলো নিয়ে যাওয়া হয় ওই এলাকায়। নিহত একজনের পকেট থেকে ৬৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের স্বজনেরা লাশ শনাক্ত করেছেন।

 


Top