জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাতে শামিল হলেন রাষ্ট্রপতি | daily-sun.com

জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাতে শামিল হলেন রাষ্ট্রপতি

ডেইলি সান অনলাইন     ২২ আগস্ট, ২০১৮ ১০:৩৫ টাprinter

জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাতে শামিল হলেন রাষ্ট্রপতি

 

ত্যাগ আর আনন্দে সারা দেশে বুধবার (২২ আগস্ট) উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজারও মানুষ হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের প্রধান জামাতে শামিল হন।

সকাল ৮টায় শুরু হয়ে সকাল ৮টা ৩২ মিনিটে মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয় প্রধান জামাত। এ জামাতে ইমামতি করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মুফতী মাওলানা মুহাম্মদ এহ্সানুল হক।


ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনায় ঈদের প্রধান জামাতে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা, কূটনীতিকসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করেন।


ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীকে প্রধান জামাতের প্রথম কাতারে নামাজ আদায় করতে দেখা গেছে।


জামাত শেষে পরস্পরের সঙ্গে কোলাকুলি ও কুশল বিনিময়ের মাধ্যমে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন মুসল্লিরা।


নামাজ শেষে মুনাজাতে গুনাহ থেকে মুক্তি এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করা হয়।


জাতীয় ঈদগাহ ঘিরে তৈরি করা হয়েছিল কঠোর নিরাপত্তা বলয়। মূল প্রবেশ পথে ছিল আর্চওয়ে। পাশেই ছিল ডিএমপির নিয়ন্ত্রণ কক্ষ।

সেখান থেকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় পুরো এলাকা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছিল। বাইরে র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যদের তৎপর দেখা গেছে।


এ ছাড়া বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের ঈদের পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৭টায়। জামাতে ইমামতি করেন মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মুহিবুল্লাহিল বাকী নদভী। নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা হয়।  


প্রতি বছরের ন্যায় ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা হিজরি জিলহজ মাসের ১০ তারিখ ঈদুল আজহা পালন করে আসছেন। সারা দেশজুড়ে ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় আজ পশু কোরবানি করবেন। ত্যাগের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে উদযাপন করবেন ইসলাম ধর্মের অন্যতম প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব।


ইসলাম ধর্মগ্রন্থ থেকে জানা যায়, হযরত ইব্রাহিম(আ.) আল্লাহ’র নির্দেশে নিজের প্রিয় পুত্র হযরত ইসমাইল (আ.) কে কোরবানি করার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ মুহুর্তে পরম দয়াময় আল্লাহ তায়ালার ইচ্ছায় ইসমাইল (আ.) এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। জিলহজ মাসের পবিত্র এই দিনে মুসলিমরা জামাতে দুই রাকাত ঈদের ওয়াজিব নামাজ আদায় করে ঈদুল আজহা উদযাপন শুরু করেন।


এরপরে নামাজ আদায় শেষ হলে পশু কোরবানি দেন। ঈদের দিন বাদেই পরের দুই দিন অর্থাৎ জিলহজ মাসের ১১ ও ১২ তারিখেও পশু কোরবানি করে থাকেন মুসলমানরা।

 


Top