বেপজার দুই বছরের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় শ্রমিকদের ৩২ কোটি টাকা পরিশোধ | daily-sun.com

বেপজার দুই বছরের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় শ্রমিকদের ৩২ কোটি টাকা পরিশোধ

প্রেস রিলিজ     ২০ আগস্ট, ২০১৮ ১৭:২০ টাprinter

বেপজার দুই বছরের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় শ্রমিকদের ৩২ কোটি টাকা পরিশোধ


চট্টগ্রাম ইপিজেডের বন্ধ হয়ে যাওয়া ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপের চারটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের ২৭০০ শ্রমিকের ৩২ কোটি টাকা পাওনা পরিশোধ করেছে দক্ষিণ কোরিয়ান মালিকানাধীন ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার থেকে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ শুরু হয়ে শেষ হয় আজ সোমবার।

এর মধ্যে ১৬ আগস্ট প্রথম দিনে ৭০০ শ্রমিকের ১০ কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়। গতকাল রবিবার ১২০০ শ্রমিকের ১২ কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়। বাকি ৮০০ শ্রমিকের ১০ কোটি টাকা আজ সোমবার পরিশোধ করা হয়। বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ (বেপজা)’র দীর্ঘ প্রায় দুই বছরের নিরলস প্রচেষ্টায় এই পাওনা পরিশোধ করা সম্ভব হলো।

 

 
ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপের চারটি প্রতিষ্ঠান ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল (বিডি) লিঃ, ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল গার্মেন্টস্ (বিডি) লিঃ, ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল নিটিং (বিডি) লিঃ এবং ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল উইভিং (বিডি) লিঃ ২২ বছর ধরে চট্টগ্রাম ইপিজেডে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল। কিন্তু ব্যবস্থাপনাগত জটিলতার কারণে প্রতিষ্ঠানটি রুগ্ন হয়ে পড়ে এবং ক্রেতারা রপ্তানী আদেশ বন্ধ করে দেয়। ফলে প্রথমে প্রতিষ্ঠানসমূহে লে-অফ ঘোষণা করা হয়। পরে ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে সেখানে কর্মরত প্রায় ২৭০০ শ্রমিককে বেপজার নির্দেশনা অনুসরণপূর্বক ছাঁটাই করে কারখানাসমূহের উৎপাদন কার্যক্রম সম্পূর্ণরুপে বন্ধ করে দেয়।  

 


শ্রমিকদের ভবিষ্য তহবিল (পিএফ) ও গ্র্যাচুইটিবাবদ প্রায় ৩২ কোটি টাকা টাকা পরিশোধের জন্য ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃপক্ষকে বেপজা থেকে বারবার তাগাদা দেওয়া হয়।

শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের জন্য বেপজা বাংলাদেশস্থ দক্ষিণ কোরিয়ান দূতাবাস, দক্ষিণ কোরিয়ায় বাংলাদেশের দূতাবাস এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যৌথ সহযোগিতার মাধ্যমে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখে এবং শেষ পর্যন্ত  বিক্রি করতে সক্ষম হয়। বেপজার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ঈদের আগেই শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের ব্যবস্থা করা হয়।   
শ্রমিক-ব্যবস্থাপনা-মালিক ঐকতানের মাধ্যমে বেপজা দেশের ৮টি ইপিজেড পরিচালনা করছে। দীর্ঘ প্রায় দুই বছরের প্রচেষ্টায় ইয়াং ইন্টারন্যাশনাল-এর শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের মাধ্যমে শ্রমিক-মালিকের সাথে বেপজার এই ঐকতান আরো সুদৃঢ় হলো।

 

 

 


Top