চিরনিদ্রায় শায়িত গোলাম সারওয়ার | daily-sun.com

চিরনিদ্রায় শায়িত গোলাম সারওয়ার

ডেইলি সান অনলাইন     ১৬ আগস্ট, ২০১৮ ১৮:৪৫ টাprinter

চিরনিদ্রায় শায়িত গোলাম সারওয়ার

 

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক, সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ার। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা ৪০ মিনিটে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয় সম্পাদক পরিষদের সভাপতি ও সাংবাদিকতা জগতের এই বাতিঘরের।


এ সময় উপস্থিত ছিলেন- সমকালের প্রকাশক এ. কে. আজাদ, সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি, নির্বাহী পরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) এস এম শাহাব উদ্দিন, নগর সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রতিবেদক লোটন একরাম, ফিচার সম্পাদক মাহবুব আজীজ, বিজনেস ডেভলপমেন্ট ম্যানেজার ইমরান কাদির।


আরও উপস্থিত ছিলেন- সংসদ সদস্য আসলামুল হক আসলাম, গোলাম সারওয়ারের পরিবারের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন তার ভাই গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা, জামাতা মিয়া নাইম হাবিব, ছেলে গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জন ও গোলাম সাব্বির অঞ্জন।


এর আগে জাতীয় প্রেসক্লাবে জোহরের নামাজের গোলাম সারওয়ারের চতুর্থ জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। দুপুর সোয়া ১টার দিকে মরদেহ প্রেসক্লাবে নিয়ে যাওয়া হলে তার পাঁচ দশকের এই আড্ডাস্থলে সহকর্মীরা তাকে শেষ বিদায় জানান।

 


এ সময় গোলাম সারওয়ারের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, সিনিয়র সহসভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, তথ্যপ্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, বিএফইউজের সভাপতি মোল্লা জালাল, সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আনাম, সমকালের প্রকাশক একে আজাদ ও সাংবাদিক নেতা মনজুরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ।


প্রয়াত গোলাম সারওয়ারের পরিবারের পক্ষ থেকে বাবার জন্য দোয়া চান বড় ছেলে গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জু।


এর আগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নিহত গোলাম সারওয়ারের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) বেলা ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদমিনার প্রাঙ্গণে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যবস্থাপনায় সর্বস্তরের মানুষ গোলাম সারওয়ারকে শেষ শ্রদ্ধা জানান।


কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়ার পর শুরুতেই গোলাম সারওয়ারের মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক প্রমুখ।

 


পরে তাকে শেষ বিদায় দিতে সাধারণ মানুষের ঢল নামে। শেষবারের মতো বিদায় দিতে এসে তাদের চোখে অশ্রুর ধারা। চারপাশে জমায়েত হওয়া শত শত মানুষের ভেতর চাপা কান্না ভালবাসার এই মানুষটির জন্য।


এর আগে সকাল ৯টা ২০ মিনিটে তেজগাঁওয়ে সমকাল কার্যালয়ের পাশে অবস্থিত বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে গোলাম সরওয়ারের লাশ নিয়ে আসা হয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে। এর আগে সকাল সোয়া ৮টার দিকে সমকাল কার্যালয়ে নেয়া হয় গোলাম সারওয়ারের মরদেহ। সেখানে সহকর্মীরা তাদের প্রিয় সম্পাদকের মরদেহে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।


এরপর দুপুর ১টায় তার মরদেহ নেয়া হয় জাতীয় প্রেস ক্লাবে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করা এই সাংবাদিকের মরদেহ মঙ্গলবার দেশে আনা হয়। দেশে আনার পর তার মরদেহ রাখা হয় বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে। এরপর বুধবার মরদেহ নেয়া হয় গ্রামের বাড়ি বরিশালের বানারিপাড়ায়। সেখান থেকে মরদেহ ঢাকায় আনার পর বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে নেয়া হয় সমকাল কার্যালয়ে।


সোমবার সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্থানীয় সময় সোমবার রাত ১১টা ২৫ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ২৫ মিনিট) মারা যান গোলাম সারওয়ার। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি দুই ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

 


উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৩ আগস্ট রাতে গোলাম সারওয়ারকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুরে নেয়া হয়। পরদিন তাকে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসার পর তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়। তবে নিউমোনিয়া সংক্রমণ হ্রাসের পাশাপাশি ফুসফুসে জমে থাকা পানিও কমে গিয়েছিল। হার্টও স্বাভাবিকভাবে কাজ করছিল। এরই মধ্যে গত রবিবার হঠাৎ করে তা রক্তচাপ কমে যায়। কিডনি স্বাভাবিকভাবে কাজ করছিল না। এ অবস্থায় সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গোলাম সারওয়ারকে লাইফসাপোর্টে নেয়া হয়।


এর আগে গত ২৯ জুলাই হঠাৎ অসুস্থবোধ করলে গোলাম সারওয়াকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।


সম্পাদক পরিষদের সভাপতি প্রবীণ এ সাংবাদিকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক জানান। সোমবার রাতে পৃথক শোকবার্তায় তারা মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

 
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচএম এরশাদ, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়াও নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ প্রবীণ এই সাংবাদিকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।


গোলাম সারওয়ার ১৯৪৩ সালের ১ এপ্রিল বরিশালের বানারীপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করেন।

 


১৯৬২ সালে দৈনিক আজাদী পত্রিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি হিসেবে সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর ১৯৬২ থেকে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পর্যন্ত দৈনিক সংবাদ পত্রিকার সহ-সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।


১৯৭২ সালে তিনি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় যোগদান করেন। এরপর প্রায় তিন দশক ধরে নানা পদে দায়িত্ব পালন করেন। পরে সাপ্তাহিক পূর্বাণীতেও বিভিন্ন পদে কাজ করেছেন। গোলাম সারওয়ার দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক সমকাল পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সমকালের সম্পাদক ছিলেন।


এছাড়া তিনি সম্পাদক পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও পিআইবির চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৪ সালে সাংবাদিকতায় তিনি একুশে পদক পান।

 

 

 


Top