ইন্দিরা-মুজিব ও রাজিব-এএএসইউ চুক্তিতেই অবৈধ অভিবাসীদের প্রতিহত করার কথা বলা হয়েছে: মোদি | daily-sun.com

ইন্দিরা-মুজিব ও রাজিব-এএএসইউ চুক্তিতেই অবৈধ অভিবাসীদের প্রতিহত করার কথা বলা হয়েছে: মোদি

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ আগস্ট, ২০১৮ ১৯:২৬ টাprinter

ইন্দিরা-মুজিব ও রাজিব-এএএসইউ চুক্তিতেই অবৈধ অভিবাসীদের প্রতিহত করার কথা বলা হয়েছে: মোদি

 

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একটি সাক্ষাতকার প্রকাশিত হয়েছে। সাক্ষাতকারে তিনি বলেছেন, “১৯৭২ সালে ইন্দিরা-মুজিব যে চুক্তি হয়েছিল এবং ১৯৮৫ সালে রাজিব গান্ধীর সাথে এএএসইউ (অল আসাম স্টুডেন্টস ইউনিয়ন) এর যে চুক্তি হয়েছিল, সেখানে অবৈধ অভিবাসীদের প্রতিহত করার কথা বলা হয়েছে”।

টাইমস অব ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত ই-মেইল সাক্ষাতকারে মোদি এ কথা বলেছেন।


ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, আসামে ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্স (এনআরসি) নিয়ে যে তিক্ত রাজনীতি চলছে, সেখানে বিভাজন সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। সেখানকার চার মিলিয়ন মানুষের ভাগ্যের কি হবে? এ প্রশ্নের জবাবে উপরোক্ত মন্তব্য করেন মোদি।


মোদি বলেন, “১৯৭২ সালের ইন্দিরা-মুজিব চুক্তিতে এবং ১৯৮৫ সালের রাজিব গান্ধী-এএএসইউ চুক্তিতে অবৈধ অভিবাসীদের প্রতিহত করার কথা বলা হয়েছে। যদিও কংগ্রেস এটা মেনে নিয়েছে, কিন্তু ভোট ব্যাংকের রাজনীতি – যেটাতে তারা সিদ্ধ – তার কারণে এটা তারা বাস্তবায়ন করেনি। রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও সাহসের অভাব রয়েছে কংগ্রেসের। দেশে অপরাধীদের ছাড় দেয়ার দায়ে তারা দুষ্ট। ”


এনআরসি’র চূড়ান্ত খসড়া থেকে ৪.০৭ মিলিয়ন মানুষের নাম বাদ পড়েছে। চূড়ান্ত খসড়া ৩০ জুলাই প্রকাশিত হয়।


বিজেপি প্রেসিডেন্ট অমিত শাহ কলকাতাতে এক সমাবেশে এনআরসি নিয়ে তার দলের অবস্থান তুলে ধরেন। তিনি বলেন যে, মোদি সরকার আসামে ভারতীয় নাগরিকদের পরিচয় চিহ্নিত করা অব্যাহত রাখবে তা তৃণমূল কংগ্রেস ও কংগ্রেস পার্টি যত বিরোধিতাই করুক না কেন।


১৯৫১ সালে প্রথমবারের মতো আসামে এনআরসি তৈরি করা হয় এবং সেটা আপডেট করা হচ্ছে। আসামই ভারতের একমাত্র রাজ্য যেখানে এনআরসি রয়েছে।


১৯৮৫ সালে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার, আসামের রাজ্য সরকার এবং এএএসইউ-এর মধ্যে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। রাজ্য থেকে বিদেশীদের চিহ্নিত করে তাদেরকে ফেরত পাঠানোর দাবিতে ছয় বছর ধরে চলে আসা সহিংস আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ওই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। মূলত বাংলাদেশীদেরকেই বিদেশী হিসেবে আখ্যা দিয়ে আসছে আন্দোলনকারীরা।


এনআরসি নিয়ে এই প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে মন্তব্য করলেন মোদি।


এএনআইকে দেয়া আলাদা এক সাক্ষাতকারে মোদি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির যুক্তি নাকচ করে দেন। মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, এনআরসি দেশকে গৃহযুদ্ধ ও রক্তপাতের দিকে ঠেলে দেবে।


এএনআইকে মোদি বলেন, “যারা নিজেদের ব্যাপারে আস্থা হারিয়েছে, জনসমর্থন হারানোর ভয় করে এবং আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার প্রতি বিশ্বাস হারিয়েছে, তারাই কেবল ‘গৃহযুদ্ধ’, ‘রক্তপাত’ এবং ‘দেশকে টুকরা টুকরা’ করার মতো কথা বলতে পারেন। তারা কোন এক সময় জাতি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। ”


মোদি বলেন, “আমি জনগণকে আশ্বস্ত করতে চাই যে, এনআরসি’র কারণে কোন ভারতীয় নাগরিককে দেশ ছাড়তে হবে না। নির্ধারিত প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে তাদের উদ্বেগের বিষয়গুলোর সমাধানের সমস্ত ব্যবস্থা করা হবে। ”

 

- সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ডট কম

 


Top