সার্ভারে ত্রুটিতে কমলাপুর ও চট্টগ্রামে টিকিট বিক্রি সাময়িক বন্ধ | daily-sun.com

সার্ভারে ত্রুটিতে কমলাপুর ও চট্টগ্রামে টিকিট বিক্রি সাময়িক বন্ধ

ডেইলি সান অনলাইন     ১১ আগস্ট, ২০১৮ ১২:৪০ টাprinter

সার্ভারে ত্রুটিতে কমলাপুর ও চট্টগ্রামে টিকিট বিক্রি সাময়িক বন্ধ

 

সার্ভারে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে রাজধানীর কমলাপুর ও চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে আপাতত ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি বন্ধ রয়েছে। শনিবার (১১ আগস্ট) সকাল ৮টায় টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার পর সকাল ১০টা ২৩ মিনিটের দিকে সার্ভারে সমস্যার কারণে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি বন্ধ হয়।


টিকিট বিক্রি ফের কখন শুরু হবে তাও সুনির্দিষ্টভাবে বলতে পারছে না রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।


কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সীতাংশ চক্রবর্তী বলেন, সকাল ১০ টা ২৩ মিনিটে হঠাৎ সার্ভার বন্ধ হয়ে যায়। সার্ভারে অবশ্যই ত্রুটি আছে। তবে কী কারণে সার্ভার ফেল করেছে তা বলা যাচ্ছে না।


এদিকে টিকিট বিক্রি বন্ধ ঘোষণা করায় বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। টিকিটের দাবিতে তারা স্টেশনে বিক্ষোভ করছেন, বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন।


ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট পেতে শনিবার ভোর থেকেই যাত্রীরা ভিড় করেন কমলাপুর রেলস্টেশনে। অনেকেই শুক্রবার রাত থেকেই স্টেশনে অবস্থান করছেন।


গত চারদিন ধরে বিক্রি হচ্ছে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট।

প্রতিদিনই টিকিটপ্রত্যাশীদের উপচেপড়া ভিড় ছিল। আজ শনিবার বিক্রি হচ্ছে ২০ আগস্টের টিকিট। অন্য যেকোনো দিনের চেয়ে আজ ভিড় সবচেয়ে বেশি। কারণ, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ঈদের দুদিন আগের টিকিট বিক্রি হচ্ছে আজ।

 

এদিকে ১২ আগস্ট রবিবার মিলবে ২১ আগস্টের টিকিট। বরাবরের মত এবারও মোট টিকিটের ৬৫ শতাংশ দেয়া হচ্ছে কাউন্টার থেকে। বাকি ৩৫ শতাংশের ২৫ শতাংশ অনলাইন ও মোবাইলে। ৫ শতাংশ ভিআইপি ছাড়াও রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৫ শতাংশ। কমলাপুর স্টেশনে ২৬টি কাউন্টারে সকাল ৮ থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে এরমধ্যে নারীদের জন্য দুইটি কাউন্টার সংরক্ষিত আছে।


এছাড়া ১৫ আগস্ট থেকে শুরু হবে ঈদ ফেরত যাত্রীদের জন্য ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি। ঈদ ফেরত অগ্রিম টিকিট রাজশাহী, খুলনা, রংপুর, দিনাজপুর ও লালমনিহাট স্টেশন থেকে বিশেষ ব্যবস্থাপনায় বিক্রি শুরু হবে। ফিরতি টিকিট ১৫ আগস্টে পাওয়া যাবে ২৪ আগস্টের টিকিট। একইভাবে ১৬, ১৭, ১৮, ১৯ আগস্ট যথাক্রমে পাওয়া যাবে ২৫,২৬,২৭,২৮ আগস্টের টিকিট। টিকিট বিক্রি শুরু হবে সকাল ৮টায়।


রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, সুষ্ঠু ও নিরাপদে ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ট্রেন পরিচালনায় সাথে সম্পৃক্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সকল প্রকার ছুটি বাতিল করা হবে। ২১, ২২ আগস্ট মৈত্রী এক্সপ্রেস এবং ২৩ আগস্টে বন্ধন এক্সপ্রেস চলাচল করবে না। একজন যাত্রীকে একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪ টি টিকিট দেয়া হবে এবং বিক্রিত টিকিট ফেরত নেয়া হবে না। ঢাকা স্টেশনে ২৬টি কাউন্টার খোলা রাখা হয়েছে। এদিকে পবিত্র ঈদুল আজহার ৫ দিন আগে ১৮ আগস্ট থেকে ঈদের আগেরদিন পর্যন্ত সব আন্তঃনগর ট্রেন সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও চলাচল করবে।


বাংলাদেশ রেলওয়েতে প্রতিদিন ২ লাখ ৬০ হাজার যাত্রী চলাচল করলেও ঈদুল আজহা উপলক্ষে দৈনিক ৩ লাখ যাত্রী চলাচল করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। সেই সঙ্গে সুষ্ঠু ও নিরাপদে ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সকল প্রকার ছুটি বাতিল করা হবে। এদিকে যাত্রীরা নির্বিঘ্নে যেন ঈদযাত্রা করতে পারে সেই লক্ষ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

 

 


Top