রাখাইনে রোহিঙ্গা দমন অভিযান বার্ষিকী পালন করবে জাতিসংঘ | daily-sun.com

রাখাইনে রোহিঙ্গা দমন অভিযান বার্ষিকী পালন করবে জাতিসংঘ

ডেইলি সান অনলাইন     ৫ আগস্ট, ২০১৮ ১৩:৫৭ টাprinter

রাখাইনে রোহিঙ্গা দমন অভিযান বার্ষিকী পালন করবে জাতিসংঘ

 

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে দেশটির সেনবাহিনীর রক্তক্ষয়ী দমন অভিযানের বার্ষিকী পালন করবে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। ওই দমন অভিযান শুরুর পর সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।


আগস্ট মাসে পরিষদের সভাপতি বৃটেনের রাষ্ট্রদূত কারেন পিয়ার্স বুধবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, ওই অনুষ্ঠানে মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস বক্তব্য দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

 
মিয়ানমার বাহিনীর দমন অভিযানকে জাতিসংঘ ‘জাতিগত নির্মূল’ হিসেবে অভিহিত করেছে।


পিয়ার্স বলেন, ২৮ আগস্ট ওই অনুষ্ঠানে মিয়ানমারে জাতিসংঘ সংস্থাগুলোর নি:শর্ত প্রবেশের সুযোগ দানের দাবি তুলবে বৃটেন, যাতে তারা শরণার্থীদের নিরাপদ ও সম্মানজক প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে পারে।


তিনি বলেন, এটা অনেক বড় একটি ইস্যু। রোহিঙ্গারা ফিরে যাওয়ার সঙ্গে বসবাস ও জীবিকার বিষয়টিও জড়িত। তিনি আরো দুটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের কথা বলেন: যা ঘটেছে তার জন্য জবাবদিহিতা ও রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব।

 


বৌদ্ধ সংখ্যাগুরু মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক বৈষম্যের স্বীকার। রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব ও মৌলিক অধিকার দেয়নি মিয়ানমার। ২০১২-২০১৫ সালেও দুই লাখ রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।


গত বছর আগস্টে কথিত রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা কয়েকটি সীমান্ত ফাঁড়িতে হামলা করলে তার জের ধরে সর্বশেষ সংকট শুরু হয়। জঙ্গি দমনের নামে রোহিঙ্গা খেদাও অভিযান শুরু করে মিয়ানমার বাহিনী। অভিযানকালে মিয়ানমারের সেনারা ব্যাপকভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন করে বলে অভিযোগ ওঠে। তাদের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নারীদের গণধর্ষণ, নির্বিচারে হত্যা, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়াসহ আরো অনেক অভিযোগ রয়েছে।


জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের প্রধান জেইদ রাদ আল হাসান মিয়ানমার বাহিনীর অত্যাচারকে মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করেন। মিয়ানমার বাহিনীর বিচারের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিমিনাল কোর্টে মামলা করারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

 

 

 


- সূত্র: এপি অবলম্বনে সাউথ এশিয়ান মনিটর ডট কম

 


Top