ওজিলের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া ছাড়া কিছু করার নেই: জার্মান অধিনায়ক | daily-sun.com

ওজিলের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া ছাড়া কিছু করার নেই: জার্মান অধিনায়ক

ডেইলি সান অনলাইন     ৩ আগস্ট, ২০১৮ ১৬:০৪ টাprinter

ওজিলের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া ছাড়া কিছু করার নেই: জার্মান অধিনায়ক

বর্ণবৈষম্য ও অসম্মানের অভিযোগ এনে জার্মানি জাতীয় দল থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন মেসুত ওজিল। এ নিয়ে সরগরম দেশটির গণমাধ্যম ও ফুটবল সংশ্লিষ্টরা।

তবে মুখে কুলুপ এঁটে ছিলেন জার্মান অধিনায়ক ম্যানুয়েল ন্যয়ার। অবশেষে নীরবতা ভাঙলেন তিনি। বললেন, এটি তার একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার। তবে আমরা তার সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছি।

 

ন্যয়ার বলেন, এটি একটি স্বাভাবিক ইস্যু। রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকে জার্মানির বিদায়ে বিষয়টি আরও ফুলেফেঁপে উঠেছিল। প্রত্যেক খেলোয়াড়েরই নিজস্ব দর্শন আছে। একটি কারণ দর্শিয়ে হুট করে অবসর নেয়া। ওজিলও নিয়েছে।

আমরা তার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি।

 

তবে দলের পক্ষ থেকে ওজিলের বর্ণবাদের অভিযোগ প্রত্যাহার করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দলের মধ্যে আমরা সবসময় সমন্বয় রাখার চেষ্টা করেছি এবং করি। প্রত্যেক খেলোয়াড়ের সুবিধা-অসুবিধা দেখি। তাদের মতামতকে প্রাধান্য দিই। তার অভিযোগটি আসলে আমলে নেয়ার মতো নয়।

 

এ পরিস্থিতিতে জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (ডিএফবি) করণীয় কী হতে পারে তাও বাতলে দিয়েছেন ন্যয়ার। বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ অধিনায়ক বলেন- জানি, সব সমালোচনার তীর ধেয়ে আসছে ডিএফবির দিকে। তবে তা নিয়ে পড়ে থাকলে হবে না। এখন দল গঠনে মনোযোগ দিতে হবে। যারা দেশের জন্য সর্বস্ব উজাড় করে দিতে চান, তাদের সুযোগ করে দিতে হবে। অবকাঠামোগত দিকটিও খেয়াল রাখতে হবে।

 

বিশ্বকাপের আগে তুরস্ক প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ওজিল ও গুন্দোগান। পরে তার একটি ভিডিও ক্লিপ নিজের ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন ওজিল। তাতে দেখা যায়, এরদোগানকে আর্সেনালের জার্সি উপহার দিচ্ছেন তিনি।

 

বিষয়টি স্বাভাবিকভাবে মেনে নিতে পারেননি জার্মানরা। ডানপন্থী রাজনীতির কারণে এরদোগানের ভাবমূর্তি নিয়ে পশ্চিমাবিশ্বে প্রশ্ন আছে। এমন একজনের সঙ্গে ছবি তোলায় জার্মানদের মূল্যবোধ নষ্টের অভিযোগ তোলা হয় ওজিলের বিরুদ্ধে। তবু তাকে বিশ্বকাপের দলে রাখেন কোচ জোয়াকিম লো।

 

বিপত্তিটি বাধে প্রথম রাউন্ড থেকে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা বিদায় নিলে। ব্যর্থতার দায় এসে পড়ে ওজিলের কাঁধে। ফলে উগ্র সমর্থকদের কাছ থেকে ঘৃণিত বার্তা হতে শুরু করে মৃত্যু হুমকিও পান তিনি। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে জাতীয় দল থেকে অবসর নেন ২৯ বছরের মিডফিল্ডার।

 

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর ঘোষণার দিন বিশাল এক বিবৃতি দেন ওজিল। তাতে লেখেন- যখন জিতি তখন আমি জার্মান, আর যখন হারি তখন অভিবাসী, মুসলমান।

 


Top