বিজেপি ‘ভাগ করে শাসন’ করার নীতি গ্রহণ করেছে: মমতা ব্যানার্জি | daily-sun.com

বিজেপি ‘ভাগ করে শাসন’ করার নীতি গ্রহণ করেছে: মমতা ব্যানার্জি

ডেইলি সান অনলাইন     ২ আগস্ট, ২০১৮ ১১:৩৩ টাprinter

বিজেপি ‘ভাগ করে শাসন’ করার নীতি গ্রহণ করেছে: মমতা ব্যানার্জি

 

বহুল-অনুমিত আসামের জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন (এনআরসি) প্রকাশিত হওয়ার এক দিন পর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি দুঃখপ্রকাশ করে বলেন, এমনকি ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি ফখরুদ্দিন আলী আহমদের পরিবারের সদস্যরাও তালিকায় তাদের নাম খুঁজে পাননি। ভারতের রাজধানীতে ক্যাথলিক বিশপস কনফারেন্সে বক্তৃতাকালে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমি দেখে বিস্মিত হয়ে গেছি যে আমাদের সাবেক রাষ্ট্রপতি ফখরুদ্দিন আলী আহমদের পরিবার সদস্যদের নামও এনআরসি আসাম তালিকায় নেই।

আমি আর কী বলতে পারি? অনেক লোকের নামই এতে নেই।


কেন্দ্রে বিজেপি-নেতৃত্বাধীন সরকারের তীব্র সমালোচনা করে মমতা বলেন, দলটি দেশে ‘ভাগ করে শাসন’ করার নীতি গ্রহণ করেছে। তিনি বলেন, তারা জনগণকে বিভক্ত করার চেষ্টা করছে। এতে দেশে রক্তপাত আর গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে যাবে। তিনি আরো বলেন, গতকাল যে ৪০ লাখ লোক ক্ষমতাসীন দলকে ভোট দিলো, আজ তারা আমাদের দেশে উদ্বাস্তু হয়ে গেল।

 
আসামের এনআরসির খসড়া তালিকায় ৪০ লাখ লোককে স্থান না দেয়ায় ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যে ৩.২৯ কোটি লোক আবেদনপত্র পূরণ করেছিল, তার মধ্যে ২.৮৯ কোটি লোক খসড়া তালিকায় তাদের স্থান পেয়েছে। আসামজুড়ে অস্বস্তি সৃষ্টি হওয়ায় সরকার জানিয়েছে, তালিকায় নাম নেই এমন কোনো লোককে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে কিংবা আটক কেন্দ্রে পাঠানো হবে না।


ভারতের ঐক্য ও বৈচিত্র্যকে গুরুত্ব দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতের প্রয়োজন পরিবর্তনের, আর তা অবশ্যই ঘটতে হবে ২০১৯ সালে।

ঝাড়খণ্ড, বিহার বা উত্তরাখন্ডে যা ঘটছে, তা পশ্চিমবঙ্গে ঘটবে না। কারণ আমরা এখানে আছি। অন্ধ্রপ্রদেশেও তা ঘটবে না, কারণ সেখানে চন্দ্রবাবু নাইডু আছেন, কর্নাটকেও ঘটবে না, কারণ সেখানে কুমারস্বামী আছেন।


দিল্লির বৈষম্যমূলক রাজনীতির সমালোচনা করে মমতা বলেন, যদি বাঙালিরা বলে বিহারিরা পশ্চিমবঙ্গে থাকতে পারবে না, যদি দক্ষিণ ভারত বলে, উত্তর ভারতীয়রা সেখানে থাকতে পারবে না, তবে দেশের অবস্থা কী হবে?

 

 


Top