আমি এই সংবর্ধনা বাংলার মানুষকে উৎসর্গ করলাম: প্রধানমন্ত্রী | daily-sun.com

আমি এই সংবর্ধনা বাংলার মানুষকে উৎসর্গ করলাম: প্রধানমন্ত্রী

ডেইলি সান অনলাইন     ২১ জুলাই, ২০১৮ ১৭:২০ টাprinter

আমি এই সংবর্ধনা বাংলার মানুষকে উৎসর্গ করলাম: প্রধানমন্ত্রী

 

নিজের অর্জনের জন্য সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কবিগুরুর ভাষায় বলতে চাই- এ মণিহার আমায় নাহি সাজে। ’ শনিবার (২১ জুলাই) বিকেলে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের দেয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতেই একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।


তিনি বলেন, সংবর্ধনা আমার প্রয়োজন নেই। আমি জনগণের সেবক। আমি এই সংবর্ধনা বাংলার মানুষকে উৎসর্গ করলাম। জনগণের জন্য কাজ করতে এসেছি। জনগণ কতটুকু পেল সেটাই আমার কাছে বিবেচ্য বিষয়। এর বাইরে আমার আর কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই।


শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকারের জন্য কাজ করেছেন। আমি তার কন্যা হিসেবে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। তার স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছি।


তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, বাংলার মানুষ যেন অন্ন পায়, বস্ত্র পায়, বাসস্থান ও শিক্ষা পায় সেটাই আমার স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন পূরণ করাই আমার লক্ষ্য।


এর আগে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে দেয়া মানপত্র পাঠ করা হয়। পরে মানপত্রের বাঁধাই করা একটি স্মারক তার হাতে তুলে দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।


দেশের উন্নয়ন ও অর্জনে অনন্য সফলতার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আজ বিকেলে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে গণসংবর্ধনা দেয়া হচ্ছে। ভারতের আসানসোলের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি-লিট ডিগ্রি অর্জন, মহাকাশে সফলভাবে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট পাঠানো, অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে গ্লোবাল উইমেন্স লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড অর্জন ও স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করায় এ গণসংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে।


অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করছেন সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। সংবর্ধনামঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত রয়েছেন।


সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ঘিরে সকাল থেকে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অভিমুখে জনস্রোত নামে। দুপুরের মধ্যেও গোটা এলাকা লোকে লোকারণ্যে পরিণত হয়। যতদূর চোখ যায়, মানুষ আর মানুষ।

 


Top