পাসের হার কমেছে ২.২৭ শতাংশ, জিপিএ-৫ সাড়ে ৮ হাজার | daily-sun.com

পাসের হার কমেছে ২.২৭ শতাংশ, জিপিএ-৫ সাড়ে ৮ হাজার

ডেইলি সান অনলাইন     ১৯ জুলাই, ২০১৮ ১১:২৫ টাprinter

পাসের হার কমেছে ২.২৭ শতাংশ, জিপিএ-৫ সাড়ে ৮ হাজার

 

উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় পাশের হার কমেছে ২ দশমিক ২৭ শতাংশ। এ ছাড়া পূর্ণাঙ্গ জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৮ হাজার ৪৬৪ জন।

এবারের উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল বিশ্লেষণে এ তথ্য উঠে এসেছে।


ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, এবার সারাদেশে গড় পাসের হার ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ। গত বছর এ পরীক্ষায় পাসের হার ছিল ৬৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। সে হিসেবে এবার পাসের হার কমেছে ২.২৭ শতাংশ।


এদিকে এবার সারা দেশে ১০টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মোট ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে সাধারণ আট বোর্ডে শিক্ষার্থী ছিল ১০ লাখ ৯২ হাজার ৬০৭ জন। মাদ্রাসা বোর্ডে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১২৭ জন। কারিগরি বোর্ডের অধীনে ১ লাখ ১৭ হাজার ৭৫৪ পরীক্ষার্থী ছিল। তাদের মধ্যে পাস করেছে ৮ লাখ ৫৮ হাজার ৮০১ জন।

যাদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২৯ হাজার ২৬২ জন। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিলেন ৩৭ হাজার ৭২৬ জন। সেই হিসাবে এবার উচ্চ মাধ্যমিকে পূর্ণাঙ্গ জিপিএ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৮ হাজার ৪৬৪ জন।


শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বৃহস্পতিবার (১৯ জুলাই) গণভবনে এবারের উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হারসহ নানা তথ্য তুলে ধরেন। এর আগে তিনি  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফলাফলের অনুলিপি হস্তান্তর করেন। বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা এসময় তার সঙ্গে ছিলেন।


প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অংশ নেন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী, শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন।


মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের বক্তব্যের আগে প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল পদ্ধতিতে ফলাফল প্রকাশ করেন।


আজ দুপুর ১টায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সংবাদ সম্মেলনে ফলের বিভিন্ন দিক বিস্তারিত তুলে ধরবেন। এরপর দুপুর ২টায় শিক্ষার্থীরা আনুষ্ঠানিকভাবে নিজ কলেজ ও মাদ্রাসা থেকে ফল জানতে পারবে। এছাড়া এসএমএস ও অনলাইনে ফল জানা যাবে।


চলতি বছর ২ এপ্রিল থেকে ১৪ মে এইচএসসির লিখিত পরীক্ষা চলে। এরপর চলে ব্যবহারিক পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৫৮ দিনে এবার  ফল প্রকাশ করা হচ্ছে।


দুপুর দেড়টা থেকেই পরীক্ষার্থীরা নিজেদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ফল জানতে পারবেন। এর পাশাপাশি শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট (http://www.educationboard.gov.bd) থেকেও ফল জানা যাবে।

 


Top