‘সেক্রেড গেমস’ এর ভাইরাল যৌনদৃশ্য নিয়ে কি বললেন ঈশিকা দে! | daily-sun.com

‘সেক্রেড গেমস’ এর ভাইরাল যৌনদৃশ্য নিয়ে কি বললেন ঈশিকা দে!

ডেইলি সান অনলাইন     ১৭ জুলাই, ২০১৮ ২০:১৬ টাprinter

‘সেক্রেড গেমস’ এর ভাইরাল যৌনদৃশ্য নিয়ে কি বললেন ঈশিকা দে!

বলিউডে ‘সেক্রেড গেমস’ ছবিতে অল্প সময়ের অভিনয় দিয়েই আলোচিত-সমালোচিত অভিনেত্রী ঈশিকা দে। অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির সঙ্গে তার অভিনীত একটি যৌনদৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে।

 

ঈশিকা কলকাতার হাওড়ার মেয়ে। মুম্বাইয়ে থাকেন। টেলিভিশনে বিভিন্ন বিজ্ঞাপনের পর অভিনয় করলেন ‘সেক্রেড গেমস’ ছবিতে। সম্প্রতি ওই ছবিতে অভিনয়ের বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন ভারতীয় একটি সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে।

 

নওয়াজের মতো অভিনেতা সঙ্গে এমন দৃশ্য অভিনয় করতে ভয় লাগছিল কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে ঈশিকা বলেন, নওয়াজ বুঝতেই দেননি যে তিনি অত বড় মাপের অভিনেতা। প্রথমে উনি একটু ইতস্তত বোধ করছিলেন। আমি বললাম, স্যার ফিল ফ্রি, আই হ্যাভ ডান আ ক্যারেক্টার লাইক দিস। আমার অসুবিধে হবে না। দৃশ্যটায় নওয়াজ আমাকে মারছিলেন।

ওই টেকগুলোর পর এজন্য তিনি বারবার আমাকে সরি বলছিলেন।

 

ছবির অন্যতম পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ বারবার অভয় দিচ্ছিলেন উল্লেখ করে ঈশিকা আরও বলেন, প্রথম দিন ভয়ে আমার হাত-পা ঠাণ্ডা হয়ে গিয়েছিল। অত বড় পরিচালক! ‘গ্যাংস অব ওয়াসেপুর’, ‘শয়তান’-এর মতো সুপারহিট সব ছবি করেছেন। তার ছবিতে তার সামনে অভিনয় করতে হবে- এটা ভেবে ভয় আরও বাড়ছিল। কিন্তু সেটে ঢুকতেই অনুরাগ আমার দিকে এগিয়ে এসে স্বাভাবিকভাবে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপনি কেমন আছেন?’ আমি তো তখনও বুঝে উঠতে পারছি না, এটা স্বপ্ন না সত্যি। তারপর যতো কথা এগোল, বুঝলাম তিনি কতোটা কাজের সঙ্গে মিশে যেতে পারেন। একটা টেক শেষ হচ্ছে আর জিজ্ঞেস করছেন, ‘আপনি ঠিক আছেন তো?’

 

 

 

ভাইরাল হওয়া ওই দৃশ্যের বিষয়ে ঈশিকা বলেন, এর আগেও অনেক শর্টফিল্মে এ রকম দৃশ্য করেছি। আমার কাছে পারফরম্যান্সই আসল। শুধু অভিনয়ের জন্য বাবা-মাকে ছেড়ে, বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে ব্রেকআপ করে, কলকাতা ছেড়ে একা মুম্বাই চলে আসি। মাকে ফোন করে নওয়াজের সঙ্গে ওই দৃশ্যের কথা বললে তিনি বলেন, করিস না, লোকে খারাপ বলবে। মাকে বললাম, গোটা পৃথিবী কী ভাবল আমার কিছু যায় আসে না। তুমি চাও কিনা বলো? মা আর কিছু বলেননি।

 

শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা জানিয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, মনিটরে আমি আর নওয়াজ স্যার একসঙ্গে দৃশ্যটা দেখছিলাম। আমি অনুরাগের মুখের দিকে বারবার তাকাচ্ছিলাম। বোঝার চেষ্টা করছিলাম, ভালো না খারাপ করেছি। দৃশ্যটা শেষ হতেই তিনি বললেন, ‘ব্যাং অন। টু গুড ঈশিকা!’

 


Top