মহাখালীতে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার, অভিযোগের তীর যুবলীগ নেতা সুন্দরী সোহেলের দিকে | daily-sun.com

মহাখালীতে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার, অভিযোগের তীর যুবলীগ নেতা সুন্দরী সোহেলের দিকে

ডেইলি সান অনলাইন     ১৫ জুলাই, ২০১৮ ১৫:৫৮ টাprinter

মহাখালীতে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার, অভিযোগের তীর যুবলীগ নেতা সুন্দরী সোহেলের দিকে

 

রাজধানীর মহাখালী এলাকা থেকে কাজী রাশেদ (৩২) নামে এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (১৫ জুলাই) ভোরে আমতলীর জলখাবার হোটেলের পেছনের গলি থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

বনানী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শাহীন আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।


তিনি জানান, নিহত কাজী রাশেদ আমতলী এলাকার মো. আবুল হোসেনের ছেলে। এছাড়া তিনি বনানী থানা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ইউসুফ সর্দার ওরফে সুন্দরী সোহেলের দেহরক্ষী।


এদিকে রাশেদের বাবা বাবুল হোসেনের অভিযোগ, সুন্দরী সোহেল ও তার সহযোগীরা কাজী রাশেদকে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে মহাখালীস্থ বনভবনের পাশের যুবলীগের অফিসে তালা দিয়ে তারা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। পুলিশ গিয়ে ওই যুবলীগ অফিসের সব সিসি ক্যামেরা বন্ধ পেয়েছে বলে জানান আবুল হোসেন। এতেই তার সন্দেহ হয় তার কাছের লোকজনই তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে গা ঢাকা দিয়েছে।


অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা সুন্দরী সোহেল বনানীর ডন হিসেবে পরিচিত। এর আগে মধ্যরাতে রিকশা ভাড়া নিয়ে বাকবিতণ্ডার জের ধরে এক রিকশাচালককে গুলি করে সংবাদের শিরোনাম হন তিনি। এ ঘটনায় তাকে গ্রেফতারও করেছিল বনানী থানা পুলিশ।

পরে অবশ্য জামিনে মুক্তি পান।


পুলিশের খাতায় অপরাধী হিসেবে সুন্দরী সোহেলের নাম তালিকাভুক্ত হয় ২০০৫ সালে। এ সময় বাড্ডার ফোর মার্ডারের ঘটনায় সোহেলের নাম সামনে চলে আসে। চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডে নিহত হন রাজধানীর অন্যতম শীর্ষ সন্ত্রাসী আলামিন ওরফে আলা।


আলা নিহত হওয়ার পর পুলিশের ব্যাপক ধরপাকড়ের মুখে সোহেল সাউথ আফ্রিকায় পালিয়ে যান। সেখানে টানা চার বছর পলাতক থাকার পর তিনি দেশে ফেরেন। দেশে ফিরেই আবার বেপরোয়া হয়ে ওঠেন।

 


Top