পাখির ডিম ভেঙে ফেলায় কঠোর সাজা ছোট্ট শিশুর! | daily-sun.com

পাখির ডিম ভেঙে ফেলায় কঠোর সাজা ছোট্ট শিশুর!

ডেইলি সান অনলাইন     ১৩ জুলাই, ২০১৮ ১৬:০৯ টাprinter

পাখির ডিম ভেঙে ফেলায় কঠোর সাজা ছোট্ট শিশুর!

ভারতের রাজস্থানের বুন্দি জেলার পাঁচ বছরের ছাত্রী স্কুলের মিড-ডে মিল নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু তথনই ধাক্কাধাক্কির ফলে সে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশে থাকা একটি স্যান্ড পাইপার পাখির বাসার উপরে গিয়ে পড়ে।

ওই ছাত্রীর পায়ে লেগে স্যান্ড পাইপারের একটি ডিম ফেটে যায়। এর পরেই গোটা গ্রামের বিষ নজরে পরে যায় ওই শিশু।

 

এক সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওই শিশুকে সাজা দিতে পঞ্চায়েতের সভা ডাকে গ্রামের মাতব্বরেরা। সেখানে ওই ছাত্রীকে তিনদিন বাড়ির বাইরে কাটানোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

 

প্রসঙ্গত, রাজস্থানের কিছু গ্রামে স্যান্ড পাইপারের মতো পরিযায়ী পাখিকে বর্ষার দূত মনে করা হয়। গ্রামবাসীরা বিশ্বাস করেন যে, স্যান্ড পাইপার পাখি বর্ষার আগমনী বার্তা নিয়ে আসে। স্যান্ড পাইপারকে গ্রামের বাসিন্দারা তিতাহারি বলেই ডাকেন। এর ডিম কোনও কারণে ভাঙা হলে প্রবল ক্ষতি হতে পারে গ্রামের।

 

 

ভারত ছাড়াও স্পেন, কানাডা, থাইল্যান্ড, জার্মানি-সহ বেশ কিছু দেশে এই পাখি দেখা যায়।

সেখানে কিন্তু এ ধরণের কোনও বিশ্বাসের চল নেই।

 

পঞ্চায়েতের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন ওই শিশুটির বাবা। তিনি ঘটনার প্রতিবাদ করেন। যার ফলে তিন দিনের জায়গায় শাস্তি বাড়িয়ে ১১ দিন করে দেয় গ্রামের মাতব্বরেরা। ফলে ১১ দিন বাড়ির বাইরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয় পাঁচ বছর বয়সী ওই শিশুকে।

 

১০ দিন ওই শিশুটি বাড়ির বাইরে কাটানোর পর একথা কানে গিয়ে পৌঁছায় স্থানীয় প্রশাসনের। তাঁরা শিশুটির বাড়ি পরিদর্শনও করেন। জানা গিয়েছে, এই কয়েক দিন বাড়ির ভিতর থেকে শিশুটির উদ্দেশ্যে খাবার ছুঁড়ে দেওয়া হতো। স্থানীয় কালেক্টর মহেশ চন্দ্র জানান, ‘‘১০ দিন বাড়ির বাইরে শিশুটিকে এভাবে কাটাতে হয়েছে, ঘটনাটি খুবই অনভিপ্রেত। গ্রামবাসীদের বিষয়টি নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করে নেওয়া উচিত ছিল। আমরা পর্যবেক্ষণ করার পরে পুলিশকে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানাব। ’’

 

শিশুটির বাবা হুকুমচাঁদের অভিযোগ, তিনি তাঁর মেয়ের উপর আনা সমস্ত অভিযোগ তুলে নিতে আবেদন জানিয়েছিলেন পঞ্চায়েতের কর্তাদের কাছে। কিন্তু শাস্তি তুলে দেওয়ার বিনিময়ে দামি মদ, মাছ, গরুর খাবার, ভুট্টা চেয়েছিল পঞ্চায়েতের কর্তারা। জানা গিয়েছে, আপাতত স্থানীয় একটি মন্দিরে পুজো দিয়ে ওই শিশুটিকে বাড়িতে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

 

ঘটনা সামনে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে রাজস্থানের মানবধিকার কমিশন ও মহিলা কমিশন। পুলিশের কাছ থেকে গোটা ঘটনার রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

 


Top