জেট ল্যাগের কারণে অসুস্থতা! | daily-sun.com

জেট ল্যাগের কারণে অসুস্থতা!

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ জুলাই, ২০১৮ ১৯:২৯ টাprinter

জেট ল্যাগের কারণে অসুস্থতা!

যাঁরা ঘন ঘন বিমান ভ্রমণে অভ্যস্ত, তাঁদের কাছে জেট ল্যাগ অত্যন্ত পরিচিত এক ভোগান্তি। দীর্ঘ সময় ধরে ভ্রমণ করলে এক ধরনের অবসাদ তৈরি হয়। আর বেশি ভ্রমণে বিভিন্ন দেশের আবহাওয়ার সঙ্গে মিলিয়ে নিতে না পারলে অসুস্থ হয়ে পড়ার যথেষ্ট আশঙ্কা রয়েছে।

 

 

জেট ল্যাগের বিভিন্ন সমস্যা এবং এ থেকে পরিত্রাণের উপায় জানিয়েছে রিডার্স ডাইজেস্ট। জেট ল্যাগে আক্রান্ত হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণগুলো হচ্ছে মাথাব্যথা, বিরক্তি, বমিবমি ভাব এবং শারীরিক দুর্বলতা। যদি সামনে আপনার দীর্ঘ অথবা ধারাবাহিক বিমান ভ্রমণ থাকে, তাহলে তার আগের কয়েক দিন নিয়ম করে একটু বেশি ঘুমিয়ে নিন, তাহলে কিছুটা ঝরঝরে থাকবেন।

 

 

বিমানে ওঠার পর প্রতি ঘণ্টায় নিয়ম করে অন্তত দুই গ্লাস পানি খান। এতে বিমানের শুষ্ক বাতাসের কারণে আপনার শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেওয়ার যে ঝুঁকি থাকে, তা কমে যাবে। টানা বসে থাকবেন না। বিমানের মধ্যে একটু হাঁটাচলা করুন, এতে আপনার শরীরের পেশিগুলোতে রক্ত চলাচল সচল থাকবে। এ ছাড়া সিটে বসে থেকেও কিছুক্ষণ পরপর হাত ও পায়ের ব্যায়াম করতে পারেন, এর ফলে পেশিব্যথার ঝুঁকি কমে যাবে।

 

 

যদি দুপুরের আগেই গন্তব্যে পৌঁছে যান, তাহলে একটু বিশ্রাম নিয়ে বিকেলের দিকে ঘুরতে বের হন। এতে ভ্রমণে ক্লান্তি দূর হবে এবং চাঙ্গা হয়ে যাবেন। সূর্যের আলো গায়ে লাগলে আপনার শরীরের ভেতরের কলকব্জা শক্তি ফিরে পাবে এবং স্বাভাবিকভাবে কাজ করবে। লম্বা সময়ের ভ্রমণ যদি হয়, তাহলে বিমানে ঘুমানোর সময় চোখে আইমাস্ক, সানগ্লাস এবং কানে এয়ারপ্লাগ লাগিয়ে নিন।

 

 

ঘুমের সময় যেন ঘাড়ে ব্যথা না পান, সে জন্য ঘাড়ে রাখতে পারেন ছোট বালিশ। নিশ্চিন্তে ঘুমানোর ব্যবস্থা করে ঘুমিয়ে পড়ুন। লম্বা ভ্রমণে গাঢ় এবং টানা ঘুম খুব উপকার দেবে। গন্তব্যে পৌঁছার পর নিজের খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করুন। অধিক প্রোটিন এবং ফাইবারসমৃদ্ধ খাবার খান। নোনতা, মিষ্টি বা চর্বিযুক্ত খাবার পরিহার করুন। সুগার লেভেল এবং শক্তি ধরে রাখতে প্রতি চার ঘণ্টা পরপর কিছু না কিছু খান।

 

 

এ জেটল্যাগ থেকে মানুষের দেহে টিউমার হওয়ার আশঙ্কাও বেড়ে যায় বলে জানাচ্ছেন গবেষকরা। কিন্তু কী কারণে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়? এ প্রসঙ্গে গবেষকরা বলছেন দেহের যে প্রোটিন দেহের অভ্যন্তরীণ ঘড়ি নিয়ন্ত্রণ করে জেটল্যাগ তৈরি করে সেই একই প্রোটিন কোষ নিয়ন্ত্রণ করে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

 

এ বিষয়ে গবেষকদের দলনেতা বার্লিনের শ্যারিট-মেডিকেল ইউনিভার্সিটির ড. অ্যাঞ্জেলা রেলোজিও। তিনি বলেন, ‘আমাদের গবেষণার ফলাফলে দেখা যায়, দেহের অভ্যন্তরীণ ঘড়ি টিউমার দমন করতে ভূমিকা রাখে। ’

 

তিনি বলেন, দেহের অভ্যন্তরীণ ঘড়ির গণ্ডগোল হলে ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণের কাজটি কঠিন হয়ে পড়ে। আর এ কারণে ক্যান্সারের ঝুঁকি তৈরি হয়। এ গবেষণার জন্য গবেষকরা আরএএস নামে একটি প্রোটিন নিয়ে গবেষণা করেন। এটি এক-চতুর্থাংশ ক্যান্সারে পাওয়া যায়। এছাড়া আরও দুটি প্রেটিন বিষয়েও তারা তথ্য সংগ্রহ করেন।

গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে প্লস ওয়ান বায়োলজি জার্নালে।

 


Top