পৃথক দুই মামলায় ১০ দিনের রিমান্ডে রাশেদ | daily-sun.com

পৃথক দুই মামলায় ১০ দিনের রিমান্ডে রাশেদ

ডেইলি সান অনলাইন     ৮ জুলাই, ২০১৮ ১৯:০৬ টাprinter

পৃথক দুই মামলায় ১০ দিনের রিমান্ডে রাশেদ

 

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানকে আরও ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রবিবার (৮ জুলাই) ঢাকা মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নুরের আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভিসির বাসা ভাঙচুর ও তথ্যপ্রযুক্তি আইনের দুই মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। পরে শুনানি শেষে আদালত দুই মামলায় পাঁচদিন করে ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।


সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তি এবং মিথ্যা তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর চেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার মো. রাশেদ খানকে জিজ্ঞাসাবাধের জন্য গত ২ জুলাই সোমবার পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।


এর আগে ১ জুলাই দুপুরে মিরপুর ১৪ নম্বারের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে ওই দিন সকালে রাজধানীর  শাহবাগ থানায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে (৫৭ ধারা) রাশেদের বিরুদ্ধে মামলা করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়।


ওই সময় রাশেদ ছাড়াও আরও দুজনকে আটক করে পুলিশ। ওই দুজন হলেন- মাহফুজ খান ও সুমন কবীর। তারা পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক।


এদিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আমিনুল হক মামলাটি আমলে নিয়ে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ২৯ জুলাই দিন ধার্য করেন।


মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ জুন বুধবার রাত ৮টা ৮ মিনিটে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে যান।

লাইভের এক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে রাশেদ বলেন, ‘মনে হচ্ছে এটা তার বাপের দেশ, সে একাই দেশের মালিক, ইচ্ছামতো যা ইচ্ছা তাই বলবে আমরা কোনো কথা বলতে পারবো না। ’ 


এজাহারে বাদি ছাত্রলীগ নেতা নাহিয়ান উল্লেখ করেন, প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এই ধরনের বক্তব্য সুস্পষ্ট মানহানী। রাশেদ বিভিন্ন মিথ্যা তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করছে।

 


Top