চিকন স্বাস্থ্য মানেই কিন্তু সুস্থ নয় | daily-sun.com

চিকন স্বাস্থ্য মানেই কিন্তু সুস্থ নয়

ডেইলি সান অনলাইন     ৭ জুলাই, ২০১৮ ১৬:১৬ টাprinter

চিকন স্বাস্থ্য মানেই কিন্তু সুস্থ নয়

ক্রমশ অগ্রসরমান ভুঁড়িটাকে নিয়ে দারুণ পেরেশানিতে আছেন? পাশের পাতলা দেহের বন্ধুটাকে দেখে প্রায়ই মনে হিংসে হয়? ওই বন্ধুটি নিশ্চিন্তে যেকোনো খাবার গিলে যান। কিন্তু আপনার টেনশনের শেষ নেই। ভাবেন, আমি যদি ওর মতো পাতলা হতে পারতাম! কিন্তু যদি ভেবে থাকেন যে পাতলা মানেই সুস্থ-সবল, তবে ভুল করছেন। 'হালকা-পাতলা মানেই সুস্থ' তত্ত্বটা পুরোপুরি ভুল বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এখানে বিস্তারিত জেনে নিন।  

 

ফ্যাটের মাত্রা 
বাইরে থেকে দেখে ঠিক বোঝা যাবে না। কিন্তু যারা পাতলা দেহের অধিকারী তাদের দেহে অন্যদের তুলনায় বেশি চর্বি জমা হতে থাকে। গবেষণায় বলা হয়, পাতলাদের দেহের ভাইসেরাল ফ্যাট (যে চর্বি প্রত্যঙ্গদের ঘিরে থাকে) এবং সাবকিউটেনাস ফ্যাটের (যে চর্বি ত্বকের নিচে থাকে) পরিমাণ মোটা দেহের মানুষের চেয়ে বেশি থাকে। এ বিষয়টা বর্তমানের জন্যে হয়তো ঝুঁকিপূর্ণ নয়। কিন্তু ভবিষ্যতে দুই স্থানের বাড়তি চর্বি বড় ধরনের ঝুঁকির কারণ হতে পারে।

 

ডায়াবেটিসের প্রবণতা 
হ্যাঁ, পাতলা দেহের অধিকারীদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেশি থাকে।

গবেষণায় বলা হয়, স্থূলকায়রা এমনিতেই নানা ঝুঁকির মধ্যে থাকেন। তাদের মধ্যে ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও রয়েছে। কিন্তু পাতলারাও ব্যতিক্রম নন। সরু দেহের মানুষদের মধ্যে খাবারে বাছ-বিচার বা পছন্দ নেই। তারা এলোমেলো চলেন। এ কারণে তাদের মধ্যেও ডায়াচবেটিসের ঝুঁকি থাকে অনেক বেশি।

 

ঝিমুনিভাব 
জানলে অবাক হবেন, মোটাদের চেয়ে পাতলাদের মধ্যেই ঝিমুনিভাবে বেশি আসতে পারে। এটা হয় অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্যে। চিকন মানুষরা মনে করেন, ইচ্ছেমতো স্ট্রিট ফুড খেলেও তাদের কোনো ক্ষতি হবে না। ফলে তারা ভোজনের ওপর সহজে নিয়ন্ত্রণ হারান। আর বাইরের বাজে খাবারের অস্বাস্থ্যকর উপাদান অবসাদ ডেকে আনে।

 

বিপাকক্রিয়ায় সমস্যা 
গবেষণায় আরেকটি অদ্ভুত বিষয়ে উঠে এসেছে। চিকন মানুষের দেহ পুষ্টি উপাদান গ্রহণে দুর্বল। তারা যে খাবারই খান না কেন, তার পুরো পুষ্টি উপাদান শুষে নিতে পারে না দেহ। আর এ ঘটনা মোটেও ভালো নয়। পরবর্তিতে এই মানুষগুলো ডায়াবেটিস এবং কার্ডিওভাসকুলার ডিজিসের ঝুঁকিতে থাকেন।

 

মৃত ত্বক 
যারা এমনিতেই চিকন, তাদের প্রায়ই ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়। যদি তারা খাবার-দাবার এবং ব্যায়ামের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর অভ্যাসের চর্চা না করেন, তবে ত্বক সংক্রান্ত জটিলতায় ভোগেন। তাদের ত্বক থাকে শুষ্ক এবং প্রাণশক্তিহীন। এটা আসলে ভেতরের অবস্থাই প্রকাশ করে।

 

দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা 
হালকা-পাতলা দেহের মানুষরা বেশি রোগাক্রান্ত হয়ে থাকেন। কারণ তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা মোটাদের চেয়ে কিছুটা কম থাকার সম্ভাবনাই বেশি। এ বিষয়টিও ঘটে অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের কারণে।

 
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 

 


Top