পায়ের বদলে টিনের কৌটো দিয়ে হাঁটাচলা | daily-sun.com

পায়ের বদলে টিনের কৌটো দিয়ে হাঁটাচলা

ডেইলি সান অনলাইন     ৫ জুলাই, ২০১৮ ১৯:২৪ টাprinter

পায়ের বদলে টিনের কৌটো দিয়ে হাঁটাচলা

মেয়েটির বয়স মাত্র ৮ বছর। যুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়ায় গৃহহীনদের শিবিরে তাকে ঘুরে বেড়াতে দেখলে মনে হতেই পারে যে, যুদ্ধের কারণেই পা দু’টি খু‌ইয়েছে সে।

কিন্তু, তা নয়। আট বছরের ছোট্ট মেয়েটি জন্মেই ছিল পা-হীন অবস্থায়। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় যাকে বলা হয় ‘কনজেনিটাল অ্যাম্পিউটেশন’।  যুদ্ধের জন্য গৃহহারা মানুষদের, সরকারের তরফ থেকেই নিয়ে যাওয়া হয় রাজধানী শহরের নানা রিফিউজি ক্যাম্পে। সিরিয়ার আলেপ্পো শহরের বাসিন্দা মায়া মেহরিকে হঠাতই একদিন তার পরিবারের সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় ইস্তামবুলে।  

 

 

 

প্রসঙ্গত, মায়ার বাবাও একই শারীরিক অক্ষমতার শিকার। এবং তিনিই এতদিন মায়ার জন্য তৈরি করে দিতেন ‘প্রসথেটিক’ পা। টিনের সঙ্গে দু’পায়ে স্পঞ্জের মতো নরম বস্তু জড়িয়ে। তার নীচে তিনি বসিয়ে দিতেন টিনের কৌটো।

এর ফলে, পায়ের সঙ্গে মাটির ঘর্ষণ হতো না। মায়াও নিজের মতো ঘুরে বেড়াতে পারত।  

 

কিন্তু, এবার দেশের সরকারই বাবা ও মেয়ের ভার কাঁধে তুলে নিয়েছে। তুরস্কের এক চিকিৎসক কালকু, সংবাদসংস্থা এএফপি-কে জানিয়েছেন যে, মায়ার ছবি দেখেই তিনি ঠিক করে নেন মেয়েটির চিকিৎসার সব ভার তিনিই নেবেন এবং টিনের কৌটো নয়, মায়ার জন্য ব্যবস্থা করবেন আসল ‘প্রসথেটিক’ পায়ের।

 


Top