সত্যিই কি অতি অভিনয় করেছেন নেইমার? | daily-sun.com

সত্যিই কি অতি অভিনয় করেছেন নেইমার?

ডেইলি সান অনলাইন     ৩ জুলাই, ২০১৮ ১৬:৪০ টাprinter

সত্যিই কি অতি অভিনয় করেছেন নেইমার?

 'নেইমার ব্রাজিলকে তৃপ্তি দিয়েছেন কিন্তু বিশ্বকে বিরক্ত করেছেন'। এ শিরোনামটিই ব্যবহার করেছেন খোদ ব্রাজিলের পত্রিকা গ্লোবো।

পত্রিকাটি মাঠে নেইমারের 'কাণ্ডকারখানা'র কয়েকটি ছবি দিয়ে এমনটাই বলেছে। তাদের মতে, 'নেইমারের কীর্তি ছিলো নিখুঁত কিন্তু বিরক্তিকর'।

যদিও এ মূহুর্তে বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড়টির নাম নেইমার আর কোন তর্ক ছাড়াই বলতে হয় লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর বিদায়ের পর বিশ্বকাপে টিকে থাকা একমাত্র সুপারস্টার। পারফরমেন্সের কারণেই সোমবারের খেলায় তিনিই ছিলেন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি দলের ২-০ গোলের দারুণ বিজয়েও তার অবদানই বেশি।

 

তারপরেও নিরপেক্ষ বিশ্লেষকদের মধ্যে এখনো মোটেও জনপ্রিয় নন নেইমার। তবে দলের জয়ে অসাধারণ অবদান তারই। বল নিয়ে কসরত দেখিয়ে জায়গা বের করা দেখিয়েছেন তিনি। গতির সাথে স্কীল, বুদ্ধিমত্তার সাথে পেছনে পাস দেয়ার মাধ্যমে প্রথম গোলটির ক্ষেত্র তিনিই তৈরি করেছেন সোমবার সন্ধ্যায়।

 

কিন্তু সেখানে কিছুটা বিরক্তিও আর নাটকও ছিলো যদিও এটা হতে পারে সামান্য সুবিধা আদায়ের চেষ্টা যা সত্যিই ফুটবল মূল্যবোধের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ বলে অনেকে মনে করেন।

 

কি ছিল আসল ঘটনা ? 

 

ম্যাচের ৭১ মিনিটের সময়কার ঘটনা। হঠাৎই নেইমারকে ফাউল করে মেক্সিকোর এক তারকা। তারপর পড়ে যাওয়ার পর নেইমার উঠে বসে। কিন্তু তারপরই আবার মাঠে শুয়ে পড়েন নেইমার এবং বুঝা যায় মারাত্মক কোন আঘাত পেয়েছেন তিনি।

 

স্বাভাবিক চোখে তখন এটাকে অভিনয় হিসেবেই ভাবতে থাকে সবাই। কারন, এই বিশ্বকাপে নেইমার এই ফাউলের জন্য সমালোচিত হচ্ছে বেশ। তবে সাধারন চোখকে ফাঁকি দিতে পারলেও ক্যামেরাকে তো আর ফাঁকি দিতে পারেনি মেক্সিকান সেই তারকা।

 

ভিডিওতে দেখা যায়, ফাউলের পর নেইমারের কাছে পড়ে থাকা বলটি নিতে আসেন মেক্সিকোর তারকা। আর তখনই ঘৃনিত একটি কাজ করেন মেক্সিকোর তারকা। নেইমারের ডান পায়ে বুট দিয়ে মাড়িয়ে দেন তিনি।

 

নেইমারের ডান পায়েরর কথা মনে আছে তো? পিএসজিতে অলিম্পিক মার্শেই এর বিপক্ষে ইনজুড়িতে পড়েছিলেন। পায়ের মেটারসাল ভেঙে গিয়েছিল। অস্ত্রোপচারের পর তিন মাস মাঠেই নামতে পারেননি। আর এই সবই কিন্তু হয়েছে সেই ডান পায়ে। আর সেখানেই মেক্সিকোর ঐ তারকা বুট দিয়ে মাড়িয়ে দিয়েছিল।

 

নেইমারেরটা যদি অভিনয় হয় তাহলে মেক্সিকোর খেলোয়ারেরটা কি হবে? নেইমারকে মাঠের খেলায় আটকাতে না পেরে ঘৃনিত যে কাজটা করলো সেটার কি হবে?

 

 

Image may contain: one or more people

 

 

প্রেস বক্সে বিবিসি সাংবাদিকের পাশে থাকা এক জার্মান সাংবাদিকের নির্ভার মন্তব্য ছিলো; "এটা নেইমার"। আর এই নেইমার ও ব্রাজিলই শুক্রবার শেষ আটের খেলায় মুখোমুখি হবে বেলজিয়ামের। এবং ২৬ বছর বয়সী এই পিএসজি তারকাই খেলার সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন।

 

 

সে কারণে পরে সাক্ষাতকার দিতে আসার পর এ বিষয়ক প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে, তবে এর উত্তর দিয়েছেন কোচ তিতে। "তারা তাকে পা দিয়ে মাড়িয়েছে। আমি বড় পর্দায় দেখেছি"। পরে নেইমার প্রশ্নকর্তাকে বলেন, "এটা আমাকে ছোটো করার আরও অপপ্রয়াস ছাড়া আর কিছুই নয়"।

 

তিনি বলেন, "সমালোচনা বা প্রশংসাকে আমি কেয়ার করিনা। গত দুটি ম্যাচের পর আমি প্রেসের সাথে কথা বলিনি, কারণ আমি সেটি চাইনি"। "আমাকে শুধু খেলতে হবে, টীম-মেটদের সহায়তা করতে হবে ও দলকে সাহায্য করতে হবে"। কিন্তু সবাই বিষয়টিকে এতো সহজ করে দেখছেননা।

 

বিবিসি রেডিও ফাইভে অ্যাস্টন ভিলার সাবেক খেলোয়াড় ডিওন ডাবলিন বলেছেন, "নেইমারের জন্য আমি বিব্রত"। "তিনি বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের একজন। কিন্তু তিনি যখন মাঠে গড়াগড়ি খান সেটা মেনে নিতে পারিনা"। নেইমারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, "কাম অন ইয়াংম্যান। তুমি এর চেয়ে ভালো খেলোয়াড়। উঠে আসো এবং খেলো"। নি:সন্দেহে নেইমার বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের একজন। আর সেটা বোঝার জন্য নীচের কিছু তথ্যই যথেষ্ট।

 

এবারের বিশ্বকাপে নেইমার:

•২৩বার শট নেয়ার চেষ্টা করে ১২টিই নিতে পেরেছেন গোলবার লক্ষ্য করে

•সবচেয়ে বেশি সুযোগ তৈরি করেছেন (১৬টি)

•সবচেয়ে বেশি ড্রিবলিং

•সবচেয়ে বেশি বার ফাউলের শিকার হয়েছেন (২৩টি)

মেক্সিকোর বিরুদ্ধে গোল সহ বিশ্বকাপে তার ষষ্ঠ গোল করেছেন তিনি। আর এসব গোল পেতে তিনি গোলে শট নিয়েছে ৩৮টি অথচ এজন্য মেসিকে নিতে হয়েছে ৬৭ ও রোনাল্ডো ৭৪ শট।

 

মেক্সিকোর সাথে ম্যাচের পর নেইমারকে নিয়ে আলোচনা সমালোচনার ঝড় ওঠে। প্রায় দশ কোটি ফলোয়ার আছে তার ইন্সটগ্রামে এবং খেলার পরই তার পোস্টে লাইক পড়েছে দশ লাখ।

কিন্তু সুইজারল্যান্ডের সাথে ১-১ গোলে ড্রয়ের পর তার মাঠে নাটকীয় গড়াগড়ির ছবিই বেশি শেয়ার হয়েছে টুইটারে।

 

কোস্টা রিকার বিরুদ্ধে ইনজুরি টাইমের গোলে জয়ের পর নেইমার কেনো কাঁদলেন সেটিও নিয়ে নানা কথা আছে। এটা কি চাপ থেকে মুক্তির জন্য? নাকি নিছক আবেগ?

 

গত বিশ্বকাপেই নিজেদের মাটিতে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে পরাজয়ের পর এবারের কোয়ার্টার ফাইনাল ব্রাজিলের অনেকের কাছেই এমন আবেগের। এবারও কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে গেছে দলটি। দেখা যাক পরের খেলায় কি করেন নেইমার।

 


Top