সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতি বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করছে! | daily-sun.com

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতি বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করছে!

ডেইলি সান অনলাইন     ১ জুলাই, ২০১৮ ২০:৫৯ টাprinter

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতি বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করছে!

-গত ২৩ জুন (শনিবার) গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনায় ১৯ জন মারা যান

 

ঈদযাত্রায় সারাদেশে ২৭৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৩৯ জন নিহত এবং ১২৬৫ জন আহতের তথ্য তুলে ধরেছিল বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। কিন্তু সংগঠনটির তথ্য সঠিক নয় বলে দাবি করেছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। তাদের দাবি, বিআরটিএ’র জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন অফিস, পুলিশ রেকর্ড এবং সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১২ জুন হতে ২৪ জুন পর্যন্ত দেশব্যাপী ১০৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫২ জন নিহত এবং ৩৫৫ জন আহত হয়েছেন।


আজ রবিবার (১ জুলাই) সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করা হয়। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা প্রেরিত ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যাত্রী কল্যাণ সমিতি নামে নিবন্ধনহীন এ সংগঠন বিভিন্ন সময়ে সংবাদ সম্মেলনে বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করে আসছে। নানান পেশার সম্মানিত ব্যক্তিদের কৌশলে তাদের সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সড়ক দুর্ঘটনাবিষয়ক তথ্যাদি উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাড়িয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে সংগঠনটি।


বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনারোধে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত পাঁচ দফা অনুশাসন বাস্তবায়নে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সকল স্টেক-হোল্ডারদের নিয়ে কার্যক্রম জোরদার করতে যাচ্ছে। এছাড়া এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা অর্ধেকে নামিয়ে আনতে মন্ত্রণালয় সচেষ্ট। সড়ক-মহাসড়কের নির্মাণজনিত ত্রুটি দূর করার পাশাপাশি ট্রাফিক আইন মেনে চলতে জনসচেতনতার বিকল্প নেই।

 


আরও বলা হয়, সড়ক ব্যবহারকারীদের সচেতনতা বাড়াতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি অংশগ্রহণ আরও জোরদার করা জরুরি।

এরই মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উদ্যোগে দেশের সড়ক-মহাসড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ স্পটসমূহ ডিভাইডারসহ প্রশস্তকরণের কাজ প্রায় শেষ হতে চলেছে।  


সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির দেয়া ভুল তথ্যে জনগণকে বিভ্রান্ত না হওয়ারও অনুরোধ জানানো হয়।

 

প্রসঙ্গত, ঈদুল ফিতরে সারাদেশে সড়ক, রেল ও নৌ-পথে ৩৩৫টি দুর্ঘটনায় ৪০৫ জন নিহত এবং ১২৭৪ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ২৭৭টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন ৩৩৯ জন এবং আহত হয়েছেন ১২৬৫ জন। শুক্রবার (২৯ জুন) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে  বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিবেদন-২০১৮তে এসব তথ্য তুলে ধরেন।


যাত্রী কল্যাণ সমিতি আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিআরটিএর সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি বাহারানে সুলতান বাহার, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট জোতিৎময় বড়ুয়া, মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

 

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির সংবাদ সম্মেলন


আরও পড়ুন:


ঈদযাত্রায় ৩৩৫টি দুর্ঘটনায় নিহত ৪০৫, আহত ১২৭৪

 


Top