তৃণমূলের নেতারা ঐক্যবদ্ধ বলেই আমরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছি: প্রধানমন্ত্রী | daily-sun.com

তৃণমূলের নেতারা ঐক্যবদ্ধ বলেই আমরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছি: প্রধানমন্ত্রী

ডেইলি সান অনলাইন     ৩০ জুন, ২০১৮ ১৬:২৮ টাprinter

তৃণমূলের নেতারা ঐক্যবদ্ধ বলেই আমরা ক্ষমতায় আসতে পেরেছি: প্রধানমন্ত্রী

 

তৃণমূলের নেতারা ঐক্যবদ্ধ ছিল বলেই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পেরেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, তাদের কারণেই দেশ আজ উন্নত হচ্ছে। আজ শনিবার (৩০ জুন) দুপুরে গণভবনে আয়োজিত দলের বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।  


তিনি বলেন, আমাদের দলের উচ্চ পর্যায়ের নেতারা মাঝেমধ্যে ভুল করে কিন্তু তৃণমূল নেতারা কখনও ভুল করে না। বঙ্গবন্ধু যখন ৬ দফা দিয়েছিলেন তখন কেউ কেউ ৮ দফা নিয়ে তাদের পেছনে ছুটেছেন।  


বর্ধিত সভার দ্বিতীয় পর্যায়ে উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। অনুষ্ঠানের শুরুতে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ। পরে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে বলেন, দেশের একজন মানুষ যেন গৃহ ছাড়া না থাকে। তালিকা করবেন কার ঘর নেই।

আমরা তাদের ঘর করে দেব। একজন মানুষ যেন না খেয়ে কষ্ট না পায়, বয়স্ক ভাতা যেন পায়, কৃষিভাতা যেন ঠিকভাবে পায়, উপবৃত্তি যেন পায়, রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভাটের কাজ যেন ভালোভাবে হয়। প্রতিটি গ্রাম-শহরের মানুষ যাতে সমান সুযোগ-সুবিধা পায়, সেদিকে গ‌্রামের নেতাদের খেয়াল রাখতে হবে। কোথাও যেন দুর্নীতি না হয় সেটাও দেখতে হবে। এবারের বাজেটে এলাকার উন্নয়নে যথেষ্ঠ টাকা রাখা হয়েছে। এসব টাকা যেন কাজে লাগে, সে ব্যবস্থা আমাদের করতে হবে।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর কন্যা ছিলাম। নিজে তিনবার প্রধানমন্ত্রী। ছেলে-মেয়েকে লেখাপড়া শিখিয়েছি আর বলেছি, লেখাপড়া ছাড়া আর কোনো সম্পদ তোমাদের দিতে পারব না। তারা বড় হয়ে তাদের মতো চলছে। তিনি বলেন, আপনারা আমার ডাকে সাড়া দিয়েছিলেন বলেই আজ দেশ থেকে জঙ্গি মুক্ত হয়েছে।


অনুরুপভাবে এদেশকে মাদকমুক্ত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। আপনারা মাদক অভিযানে সহযোগিতা করবেন। কারণ, মাদক এমন একটা নেশা যা একটা পরিবারকে ধ্বংস করে দেয়। এজন্য এ অভিযানে আপনারা সাড়া দেবেন।


তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, নৌকায় ভোট দিলে এদেশে উন্নয়ন হয়, মানুষ চিকিৎসা পায়, শিক্ষা পায়, ঘরবাড়ি পায়। এ কথাগুলো গ্রামগঞ্জের মানুষের মাঝে তুলে ধরতে হবে। কারণ মানুষের যখন সুখ আসে, তখন কিন্তু মানুষ দুখের কথা ভুলে যায়। এছাড়া আগামী নির্বাচনে কোনো দলীয় কোন্দল যেন না থাকে। থাকলে নির্বাচনের আগেই মিটিয়ে ফেলুন। যারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে, তাদের দলে টানার দরকার নেই। যারা যুবক তাদের দলে টানুন, নতুন নতুন কর্মী সৃষ্টি করুন।  

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনীতি ছিল এ দেশের শোষিত বঞ্চিত মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য। মানুষ যেন মুক্তি পায় সে জন্য তিনি বছরের পর বছর জেল খেটেছেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে অনেক আগেই এ দেশ বিশ্বের বুকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে উঠত।


আওয়ামী লীগের এই সভাপতি বলেন, সব হারিয়ে আমি এখন নিঃস্ব। তাই এখন আমার পরিবার হলো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।


উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, পৌর সভার মেয়র এবং পৌরসভা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে বিশেষ বর্ধিত সভা করে আওয়ামী লীগ।


তারই ধারাবাহিকতায় এবার ইউনিয়ন, পৌরসভা, ওয়ার্ড পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের নিয়ে এ সভা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। কিন্তু সারা দেশের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে একসঙ্গে এ সভা সম্পন্ন করা কষ্টসাধ্য বিবেচনা করে দু’টি ধাপে এই বিশেষ বর্ধিত সভা সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।


সেই সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৭ জুলাই (শনিবার) বেলা সাড়ে ১১টায় তৃণমূলের নেতা ও দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানদের নিয়ে দ্বিতীয় ধাপের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও খুলনা বিভাগের ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানরা অংশ নেবেন।

 


Top