মাতৃগর্ভেই শিশুর যেসব অনুভুতি জন্মায় | daily-sun.com

মাতৃগর্ভেই শিশুর যেসব অনুভুতি জন্মায়

ডেইলি সান অনলাইন     ২৬ জুন, ২০১৮ ১৫:৪৪ টাprinter

মাতৃগর্ভেই শিশুর যেসব অনুভুতি জন্মায়

বিজ্ঞান বলছে, জন্মের অনেক আগে থেকেই, মাতৃগর্ভে থাকাকালীন শিশু শিখে যায় বেশকিছু জিনিস। জানেন সেসব কী কী?

 

শব্দ চেনা : জীবনের এই অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টিই শিশু শিখে যায় ভ্রƒণাবস্থায়।

গবেষণা বলেছে, গর্ভাবস্থায় মা যত কথা বলেন, একটা সময়ের পর সেসব শব্দ টেপ রেকর্ডারের মতো তার কানে পৌঁছায়। তাই জন্মের পর মায়ের গলা চিনতে খুব একটা অসুবিধা হয় না শিশুর। এমনকি মায়ের চারপাশে থাকা বিভিন্ন মানুষের গলার আওয়াজও তার পরিচয়ের আওতায় থাকে।

 

 ভাষা বোঝা : গর্ভে থাকাকালীন কান তৈরি হওয়ার পরপরই শিশু তার মাতৃভাষায় অভ্যস্ত হতে শুরু করে। পরিচিত সেই ভাষায় যা কিছু বলা হোক না কেন, সেদিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া শুরু হয়ে যায় তখন থেকেই। যদি কখনও কল্পনা করেন, মাতৃগর্ভে থেকে চোখ বুজে, কান খাড়া করে শব্দ শুনছে শিশুÑ তাহলে খুব ভুল ভাবেননি।

 

স্বাদ বোঝা : গর্ভে থাকার আট থেকে পনেরো সপ্তাহের মধ্যেই শিশুর এ ক্ষমতা তৈরি হয়ে যায়। তখন থেকেই সে আলাদা করতে পারে মিষ্টি, টক আর তেতো স্বাদ। তাই জন্মের পর এর বাইরে অন্য কোনো ফ্লেভার মা নিজের খাদ্যাভ্যাসে রাখতে শুরু করলে তা প্রভাবিত করে মাতৃদুগ্ধের স্বাদকে।

শিশুও বুঝতে পারে সেই তারতম্য।

 

আলোর অস্তিত্ব : হ্যাঁ, এটাও বুঝে যায় শিশু। সাত সপ্তাহের আগে তার চোখই ফোটে না ভালো করে। কিন্তু পরীক্ষা করে দেখা গেছে, সেই অবস্থাতেও মাতৃগর্ভের নিকষ কালো অন্ধকারে কোনোভাবে আলো পৌঁছে দিলে সে তার চোখ সরিয়ে নিচ্ছে আলের বিপরীতে। এমনকি আলট্রাসাউন্ডে ধরা পড়েছে, জন্মের কাছাকাছি সময়ে বারবার চোখ পিটপিট করা শিশুর অভ্যাস।

 

গন্ধবিচার : আজব এ ক্ষমতাটিও শিশু অর্জন করে জন্মের আগেই। জিরে, মৌরি, রসুন ও টুকটাক মশলার গন্ধ সে চিনে যায় মায়ের খাদ্যাভ্যাস থেকেই। যে অ্যামনিওটিক ফ্লুয়িডে ভেসে থাকে শিশু, মূলত তার গন্ধ হয় অনেকটাই মায়ের গায়ের গন্ধের মতো। তাই জন্মের পর সেই গন্ধের ওপর আর গলার স্বরের ওপর নির্ভর করেই মায়ের উপস্থিতি টের পায় শিশু

 


Top