অধিক সন্তানের জননীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেশি | daily-sun.com

অধিক সন্তানের জননীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেশি

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ জুন, ২০১৮ ১৭:১২ টাprinter

অধিক সন্তানের জননীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেশি

দুয়ের বেশি সন্তানের মায়েদের জন্যে আশঙ্কার খবর দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। যাদের সন্তান সংখ্যা দুয়ের বেশি তারা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন।

এক গবেষণায় বলা হয়, নারীরা দুয়ের বেশি কয়টি সন্তানের জননী, তার ওপর নির্ভর করে তিনি কতটা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিতে রয়েছেন। বিশেষ করে তারা হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকিসহ আরো নানা ধরনের বিপদের মধ্যে পড়ে যান। ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় এসব তথ্য দেয়া হয়েছে।

 

বিজ্ঞানীরা সন্তান গ্রহণের সঙ্গে মায়ের স্বাস্থ্য নিয়ে গবেষণা পরিচালনা করেন। সেখানে প্রমাণ মিলেছে যে, নারীরা যত বেশি সংখ্যক সন্তানের জন্ম দেবেন তারা তত বেশি স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক আর হার্ট ফেউলুওরের ঝুঁকিতে পড়তে থাকবেন।

 

যে নারী ৫ সন্তানের জননী, আগামী ৩০ বছরের মধ্যে তার মারাত্মক আকারের হৃদরোগঘটিত সমস্যার সম্ভাবনা ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। কিন্তু যাদের দুই বা একটি সন্তান রয়েছে তুলনামূলকভাবে তাদের ঝুঁকি নেই বললেই চলে। সেইসঙ্গে প্রথমজনের স্ট্রোকের ঝুঁকি ২৫ শতাংশ এবং হার্ট ফেউলুওরের ঝুঁকি ১৭ শতাংশ বাড়ে।  

 

প্রধান গবেষক ড. ক্লেয়ার অলিভার-উইলিয়ামস বলেন, এমনিতেই গর্ভাবস্থা এবং সন্তান জন্মদান হৃদযন্ত্রের ওপর ব্যাপক প্রভাববিস্তার করে।

এ ছাড়া জন্মের পর সন্তানকে মানুষ করে তোলা আরো কঠিন ও চাপের বিষয়। প্রতিদিনের জীবনটা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় পূর্ণ থাকে। আবার গর্ভপাতের কারণেও নারীদের মানসিক ও দৈহিক অবস্থা হুমকির মুখে পড়ে যায়। এ অবস্থায় হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ে ৬০ শতাংশ। হার্ট ফেউলুওরের ঝুঁকি বাড়ে ৪৫ শতাংশ।

 

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রফেসর জেরেমি পিয়ারসন বলেন, বেশি সন্তানের মায়েদের ঝুঁকি সহজেই অনুধাবন করা যায়। সন্তান জন্মদানের ঝুঁকি ও পেরেশানি তো আছেই। সেই সঙ্গে তাদের লালন-পালনের ঝক্কি কম কথা নয়। এসব মিলিয়ে তারা নিজেদের স্বাস্থ্যের দেখভাল করতে পারেন না। এতেই তাদের অনেক ক্ষতি হয়ে যায়।

 

 
সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস 

 


Top