প্রাইভেটকারে তুলে নিয়ে ধর্ষণচেষ্টা: রনি হকের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন (ভিডিও) | daily-sun.com

প্রাইভেটকারে তুলে নিয়ে ধর্ষণচেষ্টা: রনি হকের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন (ভিডিও)

ডেইলি সান অনলাইন     ১১ জুন, ২০১৮ ১৫:২৮ টাprinter

প্রাইভেটকারে তুলে নিয়ে ধর্ষণচেষ্টা: রনি হকের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন (ভিডিও)

 

রাজধানীতে এক তরুণীকে জোর করে প্রাইভেটকারে তুলে নিয়ে ধর্ষণকালে জনতার হাতে আটক মাহমুদুল হক রনিকে (৩৫) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেছে পুলিশ। সোমবার (১১ জুন) ঢাকা মহানগর হাকিম আহসান হাবিবের আদালতে এ রিমান্ড আবেদন করেন শেরে বাংলা নগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিনহাজ উদ্দিন।


শেরেবাংলা নগর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ গণমাধ্যমকে জানান, অভিযুক্ত মাহমুদুল হক রনিকে সকালে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আটকের সময় ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়া গাড়ির চালক ফারুককে গ্রেফতারসহ ঘটনার বিষয়ে আরও তথ্য জানতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রনির সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

 


উল্লেখ্য, শনিবার (৯ জুন) দিবাগত রাতেটায় রাজধানীর কলেজগেট সিগন্যালে প্রাইভেটকারের (ঢাকা মেট্রো- গ ২৯-৫৪১৪) ভেতরে এক তরুণীকে ধর্ষণকালে মদ্যপ রনি হক ও গাড়িচালক ফারুককে আটক করে জনতা। পরে  অভিযুক্ত রনি ও তার গাড়ি চালককে প্রাইভেটকার থেকে টেনে হেঁচড়ে বের করে বেদম প্রহার করে জনতা। একপর্যায়ে ফারুক বিবস্ত্র অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। অন্যদিকে রনিকে শেরেবাংলা নগর থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করে জনতা।


এদিকে রাতের সেই ঘটনাটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে গতকাল রবিবার (১০ জুন) সকাল থেকেই তোলপাড় চলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে।  

 


স্থানীয় জনগণের মন্তব্য ও ভিডিও ফুটেজ থেকে দেখা গেছে, রাজধানীর কলেজগেট সিগন্যালে দাঁড়িয়ে থাকা প্রাইভেটকারের ভেতরে এক তরুণীর সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছিলেন রনি।

ওই সময় আরেকটি গাড়িতে ছিলেন রাফি আহমেদ নামে এক ব্যক্তি। তিনি মনে করছিলেন গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা চলছে। এর পর রাফিসহ সেখানে থাকা আরও কয়েকজন এগিয়ে গিয়ে রনির প্রাইভেটকারটি আটকে ফেলেন। তখন তারা দেখতে পান গাড়ির পেছনের আসনে রনি এক তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা করছে। পরে জনতা গাড়ির ভেতর থেকে আক্রান্ত তরুণী, অভিযুক্ত মদ্যপ তরুণ ও গাড়িচালককে বের করে আনেন।


পরে রবিবার রাতে রনির গাড়িতে থাকা দুই তরুণী শেরেবাংলা নগর থানায় এসে হাজির হন। এর মধ্যে ২১ বছরের এক তরুণী নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। মামলার পর দুই তরুণীকে পুলিশের নিরাপত্তা হেফাজতে নিয়ে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে পাঠানো হয়।


এদিকে পুলিশ জানায়, প্রাথমিক তদন্ত ও টেস্ট করার পর রনি হকের শরীরে মদ পানের নমুনা পাওয়া গেছে। স্বাস্থ্যপরীক্ষা ও ধর্ষণের আলামত সংগ্রহের জন্য ওই তরুণীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

 

 

 

 


Top