ভারতকে হারিয়ে এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলার টাইগ্রেসরা | daily-sun.com

ভারতকে হারিয়ে এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলার টাইগ্রেসরা

ডেইলি সান অনলাইন     ১০ জুন, ২০১৮ ১৫:১৬ টাprinter

ভারতকে হারিয়ে এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলার টাইগ্রেসরা

 

ছয়বারের শিরোপা জয়ী ভারতকে হারিয়ে এশিয়া কাপে শিরোপা এনে দিল বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল। প্রথমবারের মতো বড় কোনো টুর্নামেন্টের কাপ ঘরে তুললো তারা।


রবিবার (১০ জুন) মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমিতে এশিয়া কাপের ফাইনালে টসে জিতে ভারতীয় মেয়েদের ব্যাটিংয়ে পাঠান বাংলাদেশ অধিনায়ক সালমা খাতুন। বাংলাদেশি মেয়েদের বোলিং তোপে পড়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১১২ রান করে ভারত। ১১৩ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শেষ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে সালমা বাহিনী।


দেশের পুরুষ ক্রিকেট দলও এর আগে কখনই তিন বা তার অধিক দেশের অংশগ্রহণে কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা এনে দিতে পারেনি। মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টে বাঘিনীরাই আজ দুর্দান্ত পারফর্মেন্সে ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে দেশকে এশিয়ার সেরার মর্যাদা এনে দিল।


নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকার কাছে হারের পর বিস্ময়করভাবে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। পাকিস্তান, ভারত, থাইল্যান্ড ও স্বাগতিক মালয়েশিয়াকে দাপটের সঙ্গে হারিয়েছেন বাঘিনীরা।


খেলায় প্রথম ইনিংসে শিরোপা ঘরে তোলার মিশনে নেমে বাংলাদেশের নারীদের বোলিংয়ে বিপর্যয়ের মুখে পড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। বাংলাদেশ অধিনায়ক সালমা খাতুনের চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ভারতের প্রথম উইকেটের পতন হয়।

ব্যক্তিগত ৭ রানে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার এস. মানধানা।


এরপর হারমানপিত কৌর (সি) ব্যতীত ভারতীয় প্রমীলাদের আর কেউ বাঘিনীদের বলিং তোপে দাঁড়াতে পারেনি। দলের হয়ে একমাত্র হাফ সেঞ্চুরিটি আসে তার ব্যাট থেকেই। তার ব্যাটের উপর ভর করেই ১১২ রানের লক্ষ্য বেধে দেয় ভারত।

 

 

ভারতের দেয়া ১১৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি বাংলাদেশের। জাহানারা-শুকতারার ব্যাটে সহজেই এসেছে জয়। ওপেনিং জুটিতে আয়েশা ও শামিমা শুরুটা ভালোই করেছিলেন। তবে ভারতীয় স্পিনার পূনম যাদবের পর পর দুই বলে আয়েশা (১৬) ও শামিমা (১৭) সাজঘরে ফিরলে কিছুটা বিপদে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। এই জুটিতে আসে ৩৫ রান। দুই ওপেনারকে হারিয়ে ভারতের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে হাফসেঞ্চুরি করা ফারজানা হক ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান নিগার সুলতানা দেখে শুনে খেলতে থাকেন। যদিও অফস্ট্যাম্পের বাইরের একটি বল খেলতে গিয়ে উইকেট কিপারের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ফারজানা (১১)।


চতুর্থ উইকেটে নিগার ও ওয়ানডে অধিনায়ক রুমানা মিলে জয়ের কাছেই নিয়ে যাচ্ছিলেন দলকে। আচমকা বাংলাদেশ শিবিরে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দেন ক্যাচ আউট হয়ে। পূনম যাদবের ফুলটস বল মিড অনে খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিলে দারুণ একটি ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে। ২৪ বলে ৪ চারে ২৭ রানের ইনিংস খেলেন নিগার।


বাকি দায়িত্বটুকু ঠিকভাবেই সামলাচ্ছিলেন ফাহিমা-রুমানা। আর শেষ দিকেই নড়বড়ে পরিস্থিতিতে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সাত রান করে আউট হন ফাহিমা। ৬ষ্ঠ উইকেটে সানজিদা ও রুমানা মিলে জয়ের কাছেই ছিলেন। কিন্তু সানজিদা বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেওয়ার পর পর রুমানাও ফিরে যান রান আউটে। ফেরার আগে ২২ বলে ২৩ রানের ইনিংস খেলেন অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার।


শেষ বলে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল দুই রান। জাহানারা বলটি বাঁ পাশে ঠেলেই দেন ছুট। দৌঁড়ে দুই রান নিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপ জয়ের উপলক্ষ এনে দিলো মেয়েরা।


প্রসঙ্গত: ২০০৪ সালে প্রথমবার এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের আয়োজনে মেয়েদের এশিয়া কাপ ক্রিকেট শুরু হয়। সেবার ভেন্যু ছিল শ্যীলঙ্কা। প্রথম চ্যাম্পিয়ন ছিল ভারতই। শুধু তাই নয়, ২০১৬ পর্যন্ত মোট ৬বার মেয়েদের এশিয়া কাপ হয়েছে। প্রত্যেকবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তারা। ২০০৮ পর্যন্ত এই আসর ছিল ওয়ানডে ফরম্যাটের। এই ২০১৮ নিয়ে টানা তিনবার টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে হচ্ছে এশিয়া কাপ। বাংলাদেশের মেয়েরা আক্ষরিক অর্থেই সবাইকে চমকে দিয়ে ফাইনালে উঠে আসে শিরোপা অর্জন করে।


বাংলাদেশ একাদশ: সালমা খাতুন, রোমানা আহমেদ, জাহানারা আলম, ফারজানা হক পিংকি, নিগার সুলতানা জোত্যি, খাদিজা তুল কুবরা, ফাহিমা খাতুন, শামীমা সুলতানা, নাহিদা আকতার, সানজিদা আলম এবং আয়েশা রহমান।


ভারত একাদশ: হারমানপ্রিত কৌর, ঝুলান গোস্বামি, স্মৃতি মান্ধানা, একতা বিশ্ত, মিথালি রাজ, শিখা পান্ডে, ভেদা কৃষ্ণামুর্থি, পুনাম, তানিয়া ভাটিয়া, দীপ্তি শর্মা এবং অনুজা পাতিল।

 


Top