মেঘনা গ্রুপের সাথে আল্ট্রাম্যাক্স বাল্ক ক্যারিয়ার ভেসেল নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর | daily-sun.com

মেঘনা গ্রুপের সাথে আল্ট্রাম্যাক্স বাল্ক ক্যারিয়ার ভেসেল নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর

ডেইলি সান অনলাইন     ৯ জুন, ২০১৮ ২০:৪২ টাprinter

মেঘনা গ্রুপের সাথে আল্ট্রাম্যাক্স বাল্ক ক্যারিয়ার ভেসেল নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর

 

 

সম্প্রতি দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় ও অগ্রগামী শিল্প প্রতিষ্ঠান মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাষ্ট্রিজ এর সাথে চীনের  Taizhou Sanfu Ship Engineering Co. Ltd. I Jiangsu Ruihai International Trade Co. Ltd. এর দু’টি ৬৪,০০০ DWT একদম নতুন Ultramax bulk carrier জাহাজ তৈরীর চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।   প্রথমবারের মতো বাংলাদেশী কোন কোম্পানী বিশ্বব্যাপী শুষ্ক বাল্ক কার্গো পরিবহনে এত ক্ষমতাসম্পন্ন সম্পূর্ণ ব্র্যান্ড নিউ বাল্ক ক্যারিয়ার জাহাজ তৈরীর উদ্যোগ নিয়েছে।

মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাষ্ট্রিজ এর পক্ষে জনাব মোস্তফা কামাল, চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও Taizhou Sanfu Ship Engineering Co. Ltd. ও এর পক্ষে জনাব ইয়াং ইফেং  প্রেসিডেন্ট চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব তোফায়েল আহমেদ, এমপি, মাননীয় বাণিজ্যমন্ত্রী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। জনাব মোঃ মজিবুল হক, এমপি, মাননীয় রেলপথ মন্ত্রী ও জনাব শাজাহান খান, এম.পি, মাননীয় নৌপথ মন্ত্রী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন জনাব আজম জে. চৌধুরী, চেয়ারম্যান, ইস্ট কোস্ট গ্রুপ ও প্রেসিডেন্ট, ওশান গোয়িং শিপ ওয়ার্ন এসোসিয়েশন (বাংলাদেশ) এবং জনাব মোঃ শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন), সভাপতি, এফবিসিসিআই। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাষ্ট্রিজ এর মাননীয় চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব মোস্তফা কামাল।

 

এই জাহাজগুলো সর্বশেষ প্রযুক্তি এবং অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে সজ্জিত থাকবে। বাহনগুলো UMS শ্রেণীর হবে ও নিজস্ব গিয়ার্স ব্যবহার করে পণ্য লোড-আনলোড করার ক্ষমতাসম্পন্ন হবে। জাহাজগুলো দি ওয়ার্ল্ড ক্লাস ক্লাসিফিকেশন সোসাইটি NKK এর সাথে রেজিস্ট্রিকৃত এবং নতুন IMO রেগুলেশনের (২০২০ সাল থেকে কার্যকর হবে) সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হবে। এই জাহাজ সর্বোচ্চ ISO standard বজায় রাখবে  এবং INMARSAT (বিশ্বব্যাপী স্যাটেলাইট নেটওয়ার্ক) প্রযুক্তি ব্যবহার করে সর্বদা ইন্টারেনেটের সাথে সংযুক্ত থাকবে।

জাহাজে ব্যবহৃত জ্বালানীতে সালফারের উপস্থিতি খুবই কম থাকবে এবং কার্বন নির্গমন সর্বনিম্ন হবে। যেহেতু এই জাহাজ গুলোতে Water Ballast Treatment Plant থাকবে সেহেতু সর্বনিম্ন বায়ু দূষণ এবং সমুদ্রে দূষণ মাত্রা শূন্যের কোঠায় থাকবে। বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রশংসিত ও প্রগতিশীল আন্তর্জাতিক মানের প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত করার এবং বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের পতাকা বহন করার পথে এটি এম.জি.আই এর আরও একটি উদ্যোগ।

 

 

জাহাজগুলো আন্তর্জাতিক freight মার্কেটে প্রতিযোগিতামূলক থাকতে সহায়তা করবে ও ভোক্তাগণ প্রতিযোগী মূল্যে পণ্য লাভ করবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে stevedores, shipping agents এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে বিপুল সংখ্যক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এম.জি.আই এর ঢাকা ও চট্টগ্রাম অফিস থেকে পরিচালিত এই কার্যক্রমে ৩০ জন সুদক্ষ ও শিপিং এ অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তিবর্গ জড়িত থাকবে।

 

 

এম.জি.আই আশা করে এই উদ্যোগের ফলে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হবে এবং এটি বহির্বিশ্বে  বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে ।


Top