করমুক্ত আয়সীমা আড়াই লাখ টাকাই থাকল | daily-sun.com

করমুক্ত আয়সীমা আড়াই লাখ টাকাই থাকল

ডেইলি সান অনলাইন     ৭ জুন, ২০১৮ ১৬:২৭ টাprinter

করমুক্ত আয়সীমা আড়াই লাখ টাকাই থাকল

 

মানুষের বার্ষিক ব্যক্তিগত আয়ের করসীমা প্রস্তাবিত বাজেটে বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়নি। চলতি অর্থবছরের মতো আগামী অর্থবছরেও আড়াই লাখ টাকা আয় পর্যন্ত কোনো কর দিতে হবে না।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) জাতীয় সংসদে ‘সমৃদ্ধ আগামী পথযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপনের সময় তিনি একথা জানান।


তিনি জানান, গত অর্থবছরের মতো এবারও দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয়ে সাধারণ শ্রেণি করমুক্ত থাকবে। কারণ, উন্নত দেশগুলোতে করমুক্ত আয়সীমা সাধারণভাবে মাথাপিছু আয়ের ২৫ শতাংশের নিচে থাকে।


অর্থমন্ত্রী বলেন, গেল অর্থবছরে মহিলা করদাতাসহ বিভিন্ন শ্রেণির করদাতাদের জন্য এ সীমা কিছুটা বেশি ছিল। করমুক্ত আয়ের সীমা কী হবে, তা নিয়ে এবার প্রচুর আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে বাজেট নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে আমি ১৬টির বেশি বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়েছি।


তিনি বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে করমুক্ত আয়ের সীমা মাথাপিছু আয়ের সামান বা কম থাকে। কিন্তু বাংলাদেশে করমুক্ত আয়ের সীমা মাথাপিছু আয়ের দ্বিগুণ। তার পরও সব দিক বিবেচনায় আমি নতুন অর্থবছরে করমুক্ত আয়ের সাধারণ সীমা ও করহার অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব করছি।

তবে কোনো ব্যক্তি-করদাতার প্রতিবন্ধী সন্তান বা পোষ্য থাকলে এরূপ প্রতি সন্তান বা পোষ্যের জন্য করমুক্ত আয়সীমা ৫০ হাজার টাকা হবে।


অর্থমন্ত্রী জানান, সাধারণ করদাতার জন্য দুই লাখ ৫০ হাজার টাকায় কোনো কর দিতে হবে না। নারী ও ৬৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের করদাতা তিন লাখ টাকা পর্যন্ত, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি করদাতা চার লাখ টাকা পর্যন্ত, গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা করদাতা চার লাখ ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত করমুক্ত আয়সীমায় থাকবেন।


স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ’ নামে ১৬৬ পৃষ্ঠার বাজেট বই ১২ টা ৫০ এ পড়তে শুরু করেন অর্থমন্ত্রী। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ মন্ত্রী পরিষদের সদস্য ও সংসদ সদস্যরা উপস্থিত রয়েছে। এর আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর ওই প্রস্তাবে সই করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।


বাংলাদেশের এটি ৪৭তম বাজেট এবং বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের ১৯তম। আর অর্থমন্ত্রী হিসাবে আবুল মাল আবদুল মুহিতের ১২তম বাজেট।


২০১৮-১৯ অর্থবছরের ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী। গত বছরের চেয়ে এ বছর বাজেটের আকার বাড়ছে মাত্র ৬৮ হাজার কোটি টাকা। নির্বাচনী বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা।


২০১৭-১৮ অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকা। সংশোধন করে তা ৩ লাখ ৭১ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকায় নামানো হয়।

 


Top