ডাকাতের গুলিতেই ডাকাত নিহত | daily-sun.com

ডাকাতের গুলিতেই ডাকাত নিহত

ডেইলি সান অনলাইন     ১৪ মে, ২০১৮ ২০:৩৪ টাprinter

ডাকাতের গুলিতেই ডাকাত নিহত

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে এক সংখ্যালঘুর বাড়িতে দুর্ধষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতি শেষে পালিয়ে যাবার সময় নিজের দলের সদস্যদের গুলিতে দেলোয়ার হোসেন ওরফে দেলু (২৮) নামে এক ডাকাত সদস্য নিহত হয়েছেন।

এছাড়া ওই সংখ্যালঘু পরিবারের দুই যুবক গুলিবিদ্ধসহ পাঁচজনকে আহত করেছে ডাকাতরা। গতকাল রবিবার দিবাগত রাতে উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের গোমকোট গ্রামের ‘নিশি বাবুর’ বাড়ি নামে পরিচিত বাড়ির মৃত প্রফুল্ল দেবনাথের ঘরে এ ঘটনা ঘটে। 

 

নিহত ডাকাত দেলু নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার আহম্মদপুর গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এদিকে ডাকাতদের ছোড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধরা হলেন- মৃত প্রফুল্ল দেবনাথের ছেলে বিধান চন্দ্র দেবনাথ ও রিখান চন্দ্র দেবনাথ। এছাড়া অপর আহতরা হলেন- তাঁদের ভাই মলিন চন্দ্র দেবনাথ, গ্রামবাসী আবদুর রহিম এবং মাহবুব আলম। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ দুই ভাইকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 

 

পুলিশ, স্থানীয় সূত্র ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রবিবার দিবাগত রাত প্রায় আড়াইটার দিকে ওই বাড়ির মৃত প্রফুল্ল দেবনাথের বিল্ডিং ঘরের কলাপসিবল গেট ভেঙে ১০/১২ জনের একদল সশস্ত্র ডাকাত ভেতরে প্রবেশ করে। ওই ঘরে প্রফুল্ল দেবনাথের স্ত্রী ও তিন ছেলে তাঁদের পরিবার নিয়ে বসবাস করে। ডাকাতরা ভেতরে প্রবেশ করে প্রথমে তিন ভাইকে হাত-পা ও মুখ বেধে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এরপর ঘরের নারী ও শিশুদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ১৯ ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ৯০ হাজার টাকা, একটি ল্যাপটপ, ৭টি মোবাইল ফোন ও ৩টি টর্চ লাইটসহ প্রায় ১২ লক্ষ টাকার বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায় তারা।

 

ডাকাতি শেষে পালিয়ে যাবার সময় চিৎকার করলে বিধান চন্দ্র দেবনাথ ও রিখান চন্দ্র দেবনাথের ওপর গুলি চালায় তারা। এছাড়া ওই গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে আবদুর রহিম চিৎকারের শব্দ শুনে বাড়ি থেকে বের হলে ডাকাতদের সামনে পড়ায় ডাকাতরা তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে সে আরেক দিকে লাফ দেয়। এতে গুলি লাগে ডাকাত দলের সদ্য দেলুর শরীরে।

 

 

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ূব কালের কন্ঠকে বলেন, গ্রামবাসী আবদুর রহিমের ওপর গুলি চালায় ডাকাতরা। কিন্তু সেই গুলি লাগে ডাকাত দেলুর গায়ে। খবর পেয়ে পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই ডাকাতসহ গুলিবিদ্ধদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ওই ডাকাত সদস্যকে মৃত বলে ঘোষণা করেন এবং গুলিবিদ্ধ দুই ভাইকে কুমিল্লা মেডিক্যালে প্রেরণ করেন। নিহত ডাকাত সদস্যের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আর তার সঙ্গে থাকা একটি এলজি বন্দুক ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

 

 

তিনি জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। সোমবার সকালে জেলা পুলিশ সুপার মো.শাহ আবিদ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আবদুল্লাহ আল মামুন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

 


Top