সম্পদ লুকাতে ধনীরা আরো অধিক গোপনীয়তায়! | daily-sun.com

সম্পদ লুকাতে ধনীরা আরো অধিক গোপনীয়তায়!

ডেইলি সান অনলাইন     ২৬ আগস্ট, ২০১৬ ১৯:০৭ টাprinter

সম্পদ লুকাতে ধনীরা আরো অধিক গোপনীয়তায়!

 

আলোচিত 'পানামা পেপারস' ফাঁস হওয়ার পর ধনীরা কি আরো স্বচ্ছ 'ট্যাক্স স্বর্গের' সন্ধান করবেন? আপনি হয়ত তাই ভাবছেন। কিন্তু মোটেও তা হবে না। লন্ডনের কনসালটেন্ট জর্ডান গ্রিনাওয়ের মতে, এই ধনকুবেররা মোটেও তাদের সম্পদের পাহাড়কে স্বচ্ছতায় আনবেন না। বরং উল্টো আরো গোপনে চলে যাবেন। তারা হয়ত মার্শাল আইল্যান্ডস, লেবানন ও অ্যান্টিগুয়াকে নতুন ট্যাক্স স্বর্গ হিসাবে বেছে নেবেন।


পানামা পেপারস ফাঁস হয় মোসাক ফনসেকা নামের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে। এটি একটি আইনি সংস্থা যা রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের অর্থ লুকাতে সহায়তা করে। অসংখ্য ধনীর তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ায় এখন পৃথিবীর ধরকুবেররা বড় দুশ্চিন্তায় আছেন।


পানামা পেপারস এই অর্থের কুমিরদের মাটিতে নামিয়ে এনেছে, বলেন জর্ডান।


গবেষণা প্রতিষ্ঠান ট্যাক্স জাস্টিস নেটওয়ার্ক তাদের এক গবেষণায় বলে, বিশ্বের ধনী মানুষরা মোট ৩২ ট্রিলিয়ন ডলার মূল্যের সম্পদের হিসাব সবার আড়ালে রেখেছেন।


এখন পানামা পেপারস ঘটনার পর অর্থনৈতিক অপরাধ সামলাতে গ্লোবালি আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে আরো শক্তিশালী করার প্রয়োজন অনুভব করছেন সবাই। তা ছাড়া পেশাদাররাও জানেন, আরো বেশি নীতিমালা আসতে চলেছে।


গ্রিনাওয়ে জানান, ধনীরা এখন নতুন নতুন ট্যাক্স স্বর্গের সন্ধান করবেন। এতে করে অন্যান্য কিছু স্বর্গ আরো স্বচ্ছ হয়ে উঠবে। যেমন ফ্রান্সের উপকূলবর্তী দ্বীপ গুয়েরসে একটি ট্যাক্স হেভেন। এরা জানায়, পানামা পেপারস ফাঁসের ঘটনায় তারা আরো বেশি স্বচ্ছ হয়ে উঠবে। তবে আরো অনেক ট্যাক্স হেভেন এখনও গোপনই রয়ে গেছে। অর্থাৎ, এই হেভেনগুলো ক্লায়েন্টের বিষয়ে আরো বেশি গোপন হয়ে উঠেছে।


গ্রিনাওয়ে আরো জানান, যারা বিপুল সম্পদের মালিক তাদের দুশ্চিন্তা বেড়েই চলেছে। সম্পদের বিস্তারিত তথ্য প্রদান তাদের কাছে দুঃস্বপ্নের মতো।


এখন যাই ঘটুক না কেন, ধনীরা তাদের সম্পদ লুকাতে আরো বেশি গোপনীয়তার আশ্রয় নেবেন। যেমন ই-মেইলের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আর কোনো চুক্তি হবে না। লিখিত নথির চেয়ে ফোনালাপেই কাজগুলো সারা হবে, জানান গ্রিনাওয়ে।

সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

 


Top