কবরস্থানে গোসলের সময় নড়ে উঠা সেই শিশুটি মারা গেছে | daily-sun.com

কবরস্থানে গোসলের সময় নড়ে উঠা সেই শিশুটি মারা গেছে

ডেইলি সান অনলাইন     ২৪ এপ্রিল, ২০১৮ ১০:৩৪ টাprinter

কবরস্থানে গোসলের সময় নড়ে উঠা সেই শিশুটি মারা গেছে

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে মৃত ঘোষিত এবং কবরস্থানে গোসলের সময় নড়েচড়ে উঠা সেই নবজাতকটি মারা গেছে। রাজধানীর শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (২৩ এপ্রিল) দিনগত রাত ১টা ৩৩ মিনিটে শিশুটি মারা গেছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আবদুল আজিজ।


এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় তিনি বলেছিলেন, নবজাতককে বাঁচিয়ে রাখতে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন চিকিৎসকরা। তবে শিশু প্রিম্যাচিওর হওয়ায় নিজে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারছে না। ফলে ভেন্টিলেটর মেশিনের সাহায্যে তার শ্বাস-প্রশ্বাস চলছে। ভর্তির পর শারীরিক অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে।


তিনি আরও জানান, সাধারণত আড়াই কেজি ওজনের নবজাতককে স্বাভাবিক ওজনের শিশু বলে গণ্য করা হয়। দুই কেজির কম হলে প্রিম্যাচিওর শিশু বলা হয়। এই শিশুটির ওজন মাত্র ১ কেজি।


এর আগে সোমবার দুপুরের দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে মৃত ঘোষিত নবজাতকটি রাজধানীর আজিমপুর পুরাতন কবরস্থানে গোসলের সময় নড়েচড়ে উঠলে ফের তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।


কবরস্থানের মোহরার হাফিজুল ইসলাম জানান, সোমবার আনুমানিক সকাল ১০টার দিকে শরিফুল নামে এক ব্যক্তি মৃত নবজাতককে দাফন করতে আজিমপুর পুরাতন কবরস্থানে নিয়ে আসলে তিনি নবজাতককে গোসল করাতে গোসলখানায় পাঠিয়ে শরিফুলের কাছ থেকে অভিভাবকের নাম ঠিকানা লেখার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। 


এদিকে গোসলখানায় জেসমিন আক্তার ঝর্ণা নামে এক নারী নবজাতকের গায়ে পানি ঢালতেই নবজাতকটি মৃদু নড়েচড়ে ওঠে। চোখে ভুল দেখছেন ভেবে আবার পানি ঢালতেই দেখেন শ্বাস-প্রশ্বাস ওঠানামা করছে। এবার তিনি দৌড়ে গিয়ে অফিসে খবর দিলে মোহরার হাফিজুল ইসলামসহ উপস্থিত সকলে ছুটে যান। বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করেন নবজাতক শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছে।

 
তিনি জানান, নবজাতককে আবার হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। ঢামেক হাসপাতালের ডেথ সার্টিফিকেটে নবজাতক মৃত অবস্থায় জন্মগ্রহণ করেছে বলে উল্লেখ করা হয়। এতে নবজাতকের পিতার নাম- মিনহাজ। ঠিকানা- ধামরাই, ঢাকা লেখা হয়েছে।


এরপর সোমবার ঢাকা শিশু হাসপাতালে সংবাদ সম্মেলনে শিশুটির মামা মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, রবিবার (২২ এপ্রিল) রাতে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আমাদের জানানো হয় শিশুটি নড়াচড়া করছে না। সে পেটে মারা গেছে। সকালে প্রসবের মাধ্যমে তাকে বের করা হবে। বাচ্চাটি ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর ডাক্তাররা বলে সে পেটে মৃত, তারা পরীক্ষা করেছে কি-না জানি না। পরে তাকে একটি বক্সের ভেতরে রাখা হয়। তারপর আজিমপুরে নিয়ে যাওয়ার পর বাকি ঘটনা ঘটে।

 


Top