পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে আইনি নোটিশ বিএনপির | daily-sun.com

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে আইনি নোটিশ বিএনপির

ডেইলি সান অনলাইন     ২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ১৫:২৯ টাprinter

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে আইনি নোটিশ বিএনপির

 

‘লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে সবুজ পাসপোর্ট জমা দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন তারেক রহমান’- এমন বক্তব্য দেয়ায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং ওই বক্তব্য প্রকাশ করায় দৈনিক কালের কণ্ঠ ও বাংলাদেশে প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদককে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। সোমবার (২৩ এপ্রিল) দুপুরের দিকে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।


নোটিশে ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বাংলাদেশের নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন’- এ খবর ভিত্তিহীন দাবি করে তা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে বক্তব্য প্রত্যাহার না করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।


উল্লেখ্য, গত শনিবার (২১ এপ্রিল) লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা সভায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে সবুজ পাসপোর্ট জমা দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন তারেক রহমান। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, সেই তারেক রহমান কিভাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।


ওই বক্তব্য পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বরাত দিয়ে ২৩ এপ্রিল, সোমবার দৈনিক কালের কন্ঠ ও দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনে প্রকাশিত হয়।


প্রসঙ্গত, দীর্ঘ নয় বছর ধরে লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছেন তারেক রহমান। এক/এগারোর সময়ে রাজনীতি না করার মুচলেকা দিয়ে চিকিৎসার জন্য তিনি লন্ডনে যান। এরপর থেকে তিনি সেখানে অবস্থান করে বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা রাখছেন।


দুর্নীতি দমন কমিশনর দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সাজা দেন আদালত। রায়ের দিন থেকে ৭৫দিন ধরে কারাগারে আছেন তিনি। খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর থেকে সংগঠনটিতে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন তারেক রহমান। যদিও ওই একই মামলায় ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয় খালেদা জিয়ার ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অন্য পাঁচ আসামিকেও। আসামি সবাইকে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত করা হয়।

 


Top