সেই ত্রিভুবন বিমানবন্দর থেকে এবার ছিটকে পড়ল মালিন্দো বিমান | daily-sun.com

সেই ত্রিভুবন বিমানবন্দর থেকে এবার ছিটকে পড়ল মালিন্দো বিমান

ডেইলি সান অনলাইন     ২০ এপ্রিল, ২০১৮ ১৪:১৮ টাprinter

সেই ত্রিভুবন বিমানবন্দর থেকে এবার ছিটকে পড়ল মালিন্দো বিমান

 

নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে (টিআইএ) ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিএস২১১ বিধ্বস্তের ঘটনার পর এবার অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন মালিন্দো এয়ারলান্সের একটি বিমানের ১৩৯ যাত্রী। বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) রাতে মালয়েশিয়ার মালিন্দো এয়ারলান্সের ওই বিমানটি উড্ডয়নের প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

কিন্তু তার আগেই চাকা পিছলে রানওয়ে থেকে ছিটকে যায় বিমানটি। তবে এতে বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা ঘটেনি বা কেউ  হতাহত হয়নি।


বিমানবন্দরের মুখপাত্র প্রেমনাথ ঠাকুর বলেন, মালয়েশিয়ার মালিন্দো এয়ারলাইন্সের বোয়িং বিমান-৭৩৭ কুয়ালালামপুরের উদ্দেশে যাত্রা করেছিল। কিন্তু বিমান উড্ডয়নের সময় সমস্যার মুখোমুখি হন বিমানের পাইলট। বিমানটি ছিটকে রানওয়ে থেকে ৩০ মিটার দূরে কাঁদার মধ্যে আটকে যায়।


তিনি বলেন, বিমানের সব আরোহীই নিরাপদে আছেন। তবে কি কারণে এ ধরনের সমস্যা হলো সে বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানা যায়নি।


এদিকে এঘটনার পর বিমানটিকে সেখান থেকে সরানোর জন্য বিমানবন্দরে অন্যান্য বিমানের উঠা-নামা বন্ধ রাখা হয়। এতে বাইরে থেকে যেসব ফ্লাইট ওই বিমানবন্দরে নামার কথা ছিল সেগুলো অন্য বিমানবন্দরে অবতরণ করানো হয়।


তবে কত সময়ের জন্য ত্রিভুবন বিমানবন্দর বন্ধ থাকবে তা এখনও নিশ্চিত নয়।


উল্লেখ্য, গত ১২ মার্চ স্থানীয় সময় বেলা ২টা ১৮ মিনিটে নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বোম্বার্ডিয়ার ড্যাশ ৮ কিউ৪০০ মডেলের এস২-এজিইউ যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত হয়ে পাইলট, ক্রু ও যাত্রীসহ ৫২ জন নিহত হন। ইউএস বাংলার ওই বিমানটিতে মোট ৬৭জন যাত্রী  চার ক্রুসহ ৭১জন আরোহী ছিলেন। আরোহীর মধ্যে ৩৬ জন বাংলাদেশির মধ্যে ২৬ জন নিহত হন। এ ছাড়া ১০ বাংলাদেশিসহ ১৯ জন আহত হন। পরে হতাহতের উদ্ধার করে স্থানীয় কেএমসি হাসপাতাল, নরভিক হাসপাতাল ও ওম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আহতদের চিকিৎসা দেয়া হয়।


বিমানটিতে ৬৭ যাত্রীর মধ্যে বাংলাদেশি ৩২ জন, নেপালি ৩৩ জন, একজন মালদ্বীপের ও একজন চীনের নাগরিক ছিলেন। তাদের মধ্যে পুরুষ যাত্রীর সংখ্যা ছিল ৩৭, নারী ২৮ ও দু’জন শিশু ছিল।


এর আগে ২০১৫ সালের মার্চ মাসে তুর্কিস এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ওই একই বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে। এতে চারদিন ধরে বিমানবন্দর বন্ধ রাখা হয়।

 


Top