ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে ধরা প্রধান নৌ প্রকৌশলী নাজমুল রিমান্ডে | daily-sun.com

ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে ধরা প্রধান নৌ প্রকৌশলী নাজমুল রিমান্ডে

ডেইলি সান অনলাইন     ১৯ এপ্রিল, ২০১৮ ১৬:৩০ টাprinter

ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে ধরা প্রধান নৌ প্রকৌশলী নাজমুল রিমান্ডে

 

পাঁচ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার সময় হাতেনাতে আটক নৌ-পরিবহন অধিদফতরের চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও চিফ সার্ভেয়ার ড. এসএম নাজমুল হকের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) ঢাকা মহানগর হাকিম মুহম্মদ ফাহ্দ বিন আমিন চৌধুরীর আদালত শুনানি শেষে রিমান্ডের এ আদেশ দেন।

 
এর আগে বুধবার (১৮ এপ্রিল) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত রিমান্ড শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন।


রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, মেসার্স সৈয়দ শিপিং লাইন্সের এমভি প্রিন্স অব সোহাগ নামে যাত্রীবাহী নৌযানের রিসিভ নকশা অনুমোদন এবং নতুন নৌযানের নামকরণের অনাপত্তিপত্র প্রদানের জন্য নগদ ৫ লাখ টাকা ঘুষ গ্রহণকালে নাজমুল হককে হাতেনাতে গ্রেফতার করে দুদক।


নাজমুল হকের পক্ষে গোলাম মোস্তফা খান, মোসলেহ উদ্দিন জসিম রিমান্ড বাতিলের আবেদন করে শুনানি করেন। শুনানিতে তারা বলেন, নাজমুল হককে ফাঁদে ফেলে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে একটা হোটেল থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি একজন প্রকৌশলী, তার অফিসেই তো জায়গা আছে। ঘুষ নেওয়ার জন্য তিনি হোটেলে যাবেন কেন? তারা বলেন, চিফ ইঞ্জিনিয়ার কে না হতে চায়? অন্ত:কোন্দলের ফলে মামলার সৃষ্টি করে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত একদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।


এর আগে গত ১৩ এপ্রিল শুক্রবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয় নাজমুল হককে। ওইদিন শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শুভ্রত ঘোষ শুভ তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

 


উল্লেখ্য, গত ১২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সেগুন রেস্তোরাঁ থেকে নাজমুল হককে ঘুষের টাকাসহ গ্রেফতার করে দুদকের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বাধীন একটি দল।


পরদিন ১৩ এপ্রিল শুক্রবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আর নাজমুল হকের আইনজীবীরা জামিনের আবেদন করেন। ওইদিন শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শুভ্রত ঘোষ শুভ তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।


প্রসঙ্গত, মেসার্স সৈয়দ শিপিং লাইন্সের এমভি প্রিন্স অব সোহাগ নামীয় যাত্রীবাহী নৌযানের রিসিভ নক্শা অনুমোদন এবং নতুন নৌযানের নামকরণের অনাপত্তিপত্র প্রদানের জন্য প্রধান প্রকৌশলী নাজমুল হকের কাছে গেলে তিনি এজন্য ১৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বিষয়টি দুদককে জানালে কমিশন সব বিধি-বিধান অনুসরণ করে কমিশনের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বে ফাঁদ মামলা পরিচালনার অনুমতি দেয়।

 
সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৬টার দিকে ঘুষের টাকার কিস্তি বাবদ ৫ লাখ টাকা রাজধানীর সেগুন হোটেলে বসে প্রধান প্রকৌশলী নাজমুল হক নিচ্ছিলেন,  ঠিক তখনই ওঁৎ পেতে থাকা দুদকের বিশেষ টিমের সদস্যরা টাকাসহ তাকে হাতে-নাতে গ্রেফতার করে। 


এ ঘটনায় রাজধানীর রমনা মডেল থানায় দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এর সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।


এর আগে গত বছরের ১৮ জুলাই ঘুষের ৫ লাখ টাকাসহ নৌপরিবহন অধিদফতরের তৎকালীন চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও চিফ সার্ভেয়ার একেএম ফখরুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছিল দুদকের টিম। ফখরুল বেশ কিছুদিন জেল খেটে পরে জামিনে মুক্ত হন। তার পথ ধরেই আরেক চিফ সার্ভেয়ার এবার ঘুষের জালে ধরা পড়লেন।

 


Top