ফেসবুকে তথ্য চুরি! ভুল স্বীকার করলেন জুকারবার্গ | daily-sun.com

ফেসবুকে তথ্য চুরি! ভুল স্বীকার করলেন জুকারবার্গ

ডেইলি সান অনলাইন     ২২ মার্চ, ২০১৮ ১৫:৩৭ টাprinter

ফেসবুকে তথ্য চুরি! ভুল স্বীকার করলেন জুকারবার্গ

ফেসবুক থেকে সত্যিই যে ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি করে নিয়ে চলে গেছে অন্য সংস্থা, তা নিজের ফেসবুক পেজেই স্বীকার করে নিয়েছেন ফেসবুক-হোয়াটসঅ্যাপের মালিক মারক জুকারবার্গ নিজেই।  

কী বললেন তিনি? কী ভাবে আপনার ফেসবুকের তথ্য চুরি হয়ে গেছে? সব ব্যাখ্যা দিয়েছেন জুকারবার্গ নিজেই।

 

 

• কোন তথ্য চুরি হয়েছে আপনার? 

 

এখানে তথ্য বলতে মূলত আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে যে নাম, ইমেল আইডি, বয়স, স্কুল-কলেজের নাম, কোম্পানির নাম, ছবির সঙ্গে আপনার করা পোস্ট, আপনার ফেসবুক বন্ধুদের একই রকম তথ্য।

 

 

• সত্যিই কী আপনার তথ্য চুরি হয়েছে?

 

সেটা সঠিক ভাবে বলা সম্ভব নয়। তবে জুকারবার্গ বলছেন, ২০১৩ সালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষক আলেকসান্দ্রা কোগান একটি পার্সোনালিটি কুইজ অ্যাপ বানিয়ে ফেসবুকে ছেড়েছিলেন। তখন, প্রায় তিন লক্ষ ফেসবুক ব্যবহারকারী এই অ্যাপে নিজেদের তথ্য শেয়ার করেছিলেন। বন্ধুদের তথ্যও দিয়েছিলেন। সেই সময়ে ফেসবুক যেভাবে কাজ করত, তখন প্রায় ১ কোটি ইউজারের তথ্য হাতিয়ে নিয়েছিল এই অ্যাপ।

 

• কোন অ্যাপের মাধ্যমে কেমব্রিজের গবেষক তথ্য চুরি করেছিলেন?

 

‘মাই পার্সোনালিটি’ বলে একটি কুইজ অ্যাপ ফেসবুকে খুব জনপ্রিয় হয়েছিল। সেই অ্যাপের মাধ্যমেই এই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি হয়েছিল।  

 

• সেই তথ্য চুরি করে কী করেছিলেন কেমব্রিজের ওই গবেষক?

 

২০১৫ সালে ব্রিটিশ সংবাদপত্র দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে প্রকাশ পায় কেমব্রিজের গবেষক কোগান ফেসবুক থেকে চুরি করা সমস্ত ডেটা ‘কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা’-র কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন।

অভিযোগ উঠেছে সেই তথ্য পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে বিক্রি করেছে ‘কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা’।

 

• শুধুমাত্র কী ‘মাই পার্সোনালিটি’ অ্যাপই তথ্য চুরি করে?

 

না। এই ধরনের থার্ড পার্টি অ্যাপেই তথ্য চুরির ঝুঁকি থাকে। যেমন, ‘৩০ বছর পরে আপনাকে কেমন দেখতে হবে?’, ‘আপনি পুরনো জীবনে কে ছিলেন?’- এই অ্যাপগুলি ব্যবহার করলেই আপনি আসলে আপনার তথ্য শেয়ার করে ফেলছেন এদের সঙ্গে।  

 

• ফেসবুক কোনও ব্যবস্থা নেয়নি?

 

২০১৪ সালে ফেসবুক এইধরনের অ্যাপগুলির তথ্য চুরি আটকাতে ব্যবস্থা নেয়। কেউ যদি স্বেচ্ছায় অ্যাপগুলিকে তথ্য না দেয়, তা হলে ফেসবুকের কোনও ইউজারের বন্ধুদের তথ্য কেউ চুরি করতে পারবে না।

 

• কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা-র বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছিল ফেসবুক?

 

কোগানের অ্যাপটিকে নিষিদ্ধ করে দেয় ফেসবুক। জুকারবার্গ কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ও কোগানকে বলে দেন, তাদের কাছে রাখা সমস্ত ডেটা যেন মুছে ফেলা হয়। জুকারবার্গদের দাবি এই সংস্থা বলেছিল তারা অবৈধ উপায়ে যে তথ্য নিয়েছিল, তা মুছে দিয়েছে।

 

• সত্যিই কি কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা তথ্য মুছে দিয়েছিল?

 

গত সপ্তাহে ব্রিটিশ ও মার্কিন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ পায়, কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা সেই তথ্য আসলে মোছেইনি।  

জুকারবার্গ এখন জানাচ্ছেন, ‘‘আমরা বোঝার চেষ্টা করছি ঠিক কী হয়েছিল এব‌‌ং নিশ্চিত করব, যেন এটা আবার না হয়। আমরা ভুল করেছি। আরও অনেক কিছু করার রয়েছে আমাদের। উঠে পড়ে লেগে এবার সেই কাজ করতে হবে আমাদের। ’’

 

ফেসবুক এই তথ্য চুরি আটকাতে বিভিন্ন ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন ফেসবুক প্রধান।

 


Top