কোটা সংস্কারে আন্দোলন: মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে দুদিনের আলটিমেটাম শিক্ষার্থীদের | daily-sun.com

কোটা সংস্কারে আন্দোলন: মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে দুদিনের আলটিমেটাম শিক্ষার্থীদের

ডেইলি সান অনলাইন     ১৮ মার্চ, ২০১৮ ১৬:৪৬ টাprinter

কোটা সংস্কারে আন্দোলন: মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে দুদিনের আলটিমেটাম শিক্ষার্থীদের

 

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ৭০০-৮০০ শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে পুলিশের দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের জন্য দুদিনের আলটিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। রবিবার (১৮ মার্চ) এক সংবাদ সম্মেলনে এ আলটিমেটাম দেয়া হয়।


জানা গেছে, সকাল ১০টার দিকে কোটা সংস্কারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে জড়ো হয় হাজার হাজার শিক্ষার্থী। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তারা শাহবাগে অবস্থান নেন। এর পর মিছিল নিয়ে নীলক্ষেত হয়ে রাজু ভাস্কর্যে যায়। পরে সেখানে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের জন্য দুদিনের আলটিমেটাম দেয়া হয়।


এদিকে শিক্ষার্থীরা স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন। এ ছাড়া ২৯ মার্চ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নাগরিক সমাবেশের ঘোষণা দেয়া হয়। সেখানে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিক্ষাবিদ ও বুদ্ধিজীবীরা কোটা সংস্কারের যৌক্তিকতা তুলে ধরে বক্তব্য রাখবেন।

 


পুলিশের ওপর হামলা, সরকারি কাজে বাধা এবং গাড়ি ভাঙচুরের আভিযোগে গত বৃহস্পতিবার (১৫ মার্চ) শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক মির্জা মো. বদরুল হাসান বাদী হয়ে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ৭০০-৮০০ শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছেন। 


এর আগে গত বুধবার (১৪ মার্চ) রাজধানীর হাইকোর্ট মোড়ে কোটা সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ এবং লাঠিচার্জ করে। এসময় কমপক্ষে ৫০ জন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশ।


প্রসঙ্গত, বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থার সংস্কারের ৫ দফা দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান ৫৬ শতাংশ কোটা ব্যবস্থা সংস্কার করে ১০ শতাংশে নিয়ে আসার দাবিতে এ আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা।

 


এরই অংশ হিসেবে গত ১৭ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি মানববন্ধনের কর্মসূচি পালন করেন তারা। ২৫ ফেব্রুয়ারি মানববন্ধন কর্মসূচি শেষে শিক্ষার্থীরা প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন। ১৩ মার্চের মধ্যে দাবি আদায় না হলে ১৪ মার্চ সকালে সারা দেশে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ও ঢাকায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার (১৪ মার্চ) এই কর্মসূচি পালন করেন তারা।


কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন পোস্টার ফেস্টুনে ‘ইহা কোটা নয়, বৈষম্য’ ‘কোটা দিয়ে কামলা নিয়ে, মেধা দিয়ে আমলা চাই,’ ‘১০% বেশি কোটা নয়’, স্বাধীনতার মূলমন্ত্র কোটা প্রথার সংস্কার কর,’ বিভিন্ন লেখা প্রদর্শন করেন। 

 
এদিকে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসসহ (বিসিএস) সব সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থার পুনর্মূল্যায়ন চেয়ে করা একটি রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। সোমবার (৫ মার্চ) বিচারাপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। গত ৩১ জানুয়ারি এ সংক্রান্ত রিট দায়ের করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র ও দুই সাংবাদিক। 


রিট খারিজের আগে আদালত আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনি সংক্ষুব্ধ কিনা, ক্ষতিগ্রস্ত কিনা- তা হওয়ার আগেই আদালতে এসেছেন? আপনিতো সাংঘাতিক লোক।’


আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূইয়া।

 

আন্দোলনকারীদের দাবি

 

• কোটা ব্যবস্থার সংস্কার করে ৫৬ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশে নিয়ে আসা হোক

 

• কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে খালি থাকা পদগুলোতে মেধাবীদের নিয়োগ দিতে হবে

 

• কোটার জন্য কোনো ধরনেরে বিশেষ পরীক্ষা নেয়া যাবে না

 

• সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন বয়সসীমা হতে হবে

 

• চাকরির নিয়োগপরীক্ষায় কোটা সুবিধা একবারের বেশি ব্যবহার করা যাবে না

 

আরও পড়ুন:

 

কোটা বিরোধী ৭০০-৮০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা


কোটা প্রথা পুনর্মূল্যায়নের রিট খারিজ

 

 


Top